নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের বাইশটেকি গ্রাম থেকে বন্ধুর সঙ্গে ঢাকায় ঘুরতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলেন মাজহারুল ইসলাম নামের এক যুবক। পুলিশ রোববার রাতে রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতাল থেকে ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে। সোমবার সকালে নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিহত যুবক মাজহারুল সোনারগাঁয়ের কাঁচপুর ইউনিয়নের বাইশটেকি গ্রামের মুজিবুর রহমানের ছেলে।

সোনারগাঁ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সিরাজুল ইসলাম সিরাজ জানান, শনিবার বিকেলে কয়েকজন বন্ধুর সঙ্গে ঢাকায় ঘুরতে যান মাজহারুল ইসলাম। ওইদিন রাত ১০টার দিকে নাফিজ নামের এক যুবক মাজহারুলের বাবার মোবাইলে ফোন দিয়ে জানায় মাজহারুল সড়কে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন। তার চিকিৎসার জন্য টাকার প্রয়োজন। এ খবর শুনে তার পরিবারের লোকজন নাফিজের চিকিৎসার টাকা নিতে কাঁচপুর আসতে বলেন। কাঁচপুর আসার কথা বললে নাফিজ মোবাইল ফোন বন্ধ করে দেয়। পরবর্তীতে মাজহারুলের পরিবারের লোকজন তাকে না পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে মাজহারুল ইসলামকে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন দেখতে পেয়ে সোনারগাঁ থানা পুলিশকে অবহিত করেন। গত রোববার বিকেলে মাজহারুল ইসলাম চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এসআই সিরাজ আরও বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার কোনো চিহ্ন নিহত মাজহারুল ইসলামের শরীরে নেই। তবে তার মাথায় আঘাত রয়েছে, এতে মাথার এক পাশ ফুলে রয়েছে। বিষয়টি সন্দেহ হলে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে লাশ পাঠানো হয়েছে।’

নিহতের মামা মিলন মিয়ার অভিযোগ, তার ভাগিনা শনিবার বিকেলে ঘুরতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলেন। এটা নিশ্চিত একটি হত্যাকাণ্ড। হত্যাকাণ্ডটি সড়ক দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়া চেষ্টা করা হয়েছে। প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন করে হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তিনি।

সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। নিহতের লাশ ঢাকা থেকে এনে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে পেলে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন হবে।