অসুস্থ নানিকে দেখতে বাবা-মা ও নানার সঙ্গে ঢাকায় এসেছিল ছয় বছরের সাকিরা আক্তার বৃষ্টি। গ্রামের বাড়ি বরিশাল থেকে ঢাকার সদরঘাটে নেমে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় মাতুয়াইলে যাচ্ছিল মামার বাসায়। পথেই বাসচাপায় মারা যান তার মা-বাবা ও নানা। ছোট্ট বৃষ্টি আহত হলেও ভাগ্যক্রমে বেঁচে যায়। এতদিন তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। চার দিন পর  মঙ্গলবার হাসপাতাল থেকে মামার বাসায় ফিরেছে।

গত শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর মাতুয়াইলে ওই দুর্ঘটনায় বৃষ্টির মা শারমিন আক্তার, বাবা রিয়াজুল ইসলাম খান এবং নানা আব্দুর রহমান নিহত হন। তাদের মরদেহ গ্রামের বাড়ি নিয়ে দাফন করা হয়। এরপর থেকে বৃষ্টি তার মামি সোনিয়া পারভীন মণির কাছে হাসপাতালে ছিল। তার মাথায় আঘাত থাকায় চলছিল চিকিৎসা।

বৃষ্টির বড় মামা নজরুল ইসলাম জানান, সুস্থ হয়ে যাওয়ায় মঙ্গলবার চিকিৎসকরা বৃষ্টিকে ছাড়পত্র দিয়েছেন। এর পরপরই বেলা সাড়ে ৩টার দিকে তিনি তাকে মাতুয়াইলের বাসায় নিয়ে যান। এখন থেকে বাবা-মা হারানো বৃষ্টি ও তার একমাত্র ভাই শাহরিয়ার ফাহিম (১১) তাদের কাছেই থাকবে।

হাসপাতালে দেখভাল করা বৃষ্টির মামি সোনিয়া পারভীন মণি জানান, হাসপাতাল ছাড়ার সময়ে বৃষ্টি খুব উৎফুল্ল ছিল। তাকে এখনও জানতে দেওয়া হয়নি যে, তার মা-বাবা ও নানা নেই।