কয়েকদিন ধরেই তরুণীকে কুপ্রস্তাব দিয়ে যাচ্ছিল এলাকার এক ‘বখাটে’। আর তাতে রাজি না হওয়ায় তরুণীদের কষ্টে গড়া খামারের ৬০০ মুরগির বাচ্চা সহযোগীদের নিয়ে পায়ে পিষে মারেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের বুরুমদী এলাকায় গত শনিবার এ ঘটনা ঘটে। রোববার খামারের মালিক মেয়েটির মা সোনারগাঁ থানায় এ বিষয়ে একটি অভিযোগ দিয়েছেন।

থানায় জমা দেওয়া অভিযোগপত্র থেকে জানা যায়, ওই নারীর স্বামী সৌদি আরবে থাকেন। ফলে নারী তার মেয়েকে নিয়ে বাড়ির জায়গায় মুরগির খামার ও দোকান গড়ে তোলেন। মা-মেয়ে মিলেই মূলত এসব দেখাশোনা করেন। এরই মধ্যে স্থানীয় সাদেক মিয়ার ছেলে সাজ্জাদ হোসেন কয়েকদিন দোকানে এসে মেয়েটিকে উত্যক্ত করে কুপ্রস্তাব দেয়। এতে রাজি না হওয়ায় ক্ষতি করার হুমকি দেয়। গত শনিবার বিকেলে বাড়িতে কেউ না থাকায় সাজ্জাদ হোসেন তার সহযোগীদের নিয়ে তরুণীদের মুরগির খামারে হামলা চালায়। এ সময় তারা ৬০০ মুরগির বাচ্চা পায়ে পিষে মারে।

স্থানীয় অনেকেই বলেন, সাজ্জাদ হোসেন বখাটে, উচ্ছৃঙ্খল ও মাদকসেবী। সে এলাকায় বখাটেপনা করে বেড়ায়। কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে মারধরসহ ভয়ভীতি দেখায়।

খামারের মালিক ওই নারী বলেন, স্বামী বাড়িতে না থাকায় সন্তানদের নিয়ে বাড়িতে মুরগির খামার ও বাড়ির সামনে দোকান গড়ে তোলেন। মেয়ে কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বখাটে সাজ্জাদ ও তার সহযোগীরা তাদের খামারের বড় ক্ষতি করে দিয়েছে। ওই হামলার কারণে অনেক টাকার লোকসান গুনতে হবে তাদের। এর দ্রুত বিচার দাবি করেন তিনি।

সোনারগাঁ থানার ওসি মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান বলেন, মুরগির খামারে হামলার ঘটনায় একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।