অপহরণের পর দীর্ঘ আড়াই মাস পেরিয়ে গেলেও উদ্ধার হয়নি রাজধানীর দক্ষিণখান গার্লস স্কুলের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী রিয়া আক্তার (১৬)। মেয়ের সন্ধানে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন দক্ষিণখানের বাসিন্দা সফিকুল ইসলাম ও রানু আক্তার দম্পতি। রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান অপহৃত ছাত্রীর বাবা-মা

তারা বলেন, প্রতিদিনের মতো গত ২৭ ফেব্রুয়ারি সকালে বাসা থেকে স্কুলে যায় তাদের মেয়ে রিয়া আক্তার (১৬)। রিয়া দক্ষিণখান গার্লস স্কুলের দশম শ্রেণীর ছাত্রী। স্কুল শেষেও দীর্ঘক্ষণ বাসায় না ফেরার পর সফিকুল ইসলাম মেয়ের খোঁজ নিতে স্কুলে যান। স্কুলের সামনে যাওয়া মাত্রই কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান স্থানীয় ভাড়াটিয়া মো. সুজনসহ কয়েকজন দুর্বৃত্ত রিয়াকে জোরপূর্বক একটি মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে গেছে।

এ ঘটনায় গত ১ মার্চ দক্ষিণখান থানায় মামলা (মামলা নং ১, তারিখ:০১-০৩.২০২২) দায়ের করেন সফিকুল ইসলাম। ইতিমধ্যে আড়াই মাস অতিবাহিত হলেও মেয়ের কোনো সন্ধান পাননি তিনি। থানা পুলিশও এ ব্যাপারে কোনো তৎপরতা দেখাচ্ছে না বলে অভিযোগ তার।

সফিকুল ইসলাম আরো বলেন, বেশ কিছু দিন ধরে স্কুলে যাতায়াতের সময় সুজন তার মেয়েকে উত্ত্যক্ত করত। সুজন তার মেয়েকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। সুজনের প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় রিয়াকে অপহরণসহ নানা ধরনের ভয়ভীতিও দেখিয়েছে বিভিন্ন সময়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এ রকম করবে তা ভাবতে পারেননি। ঘটনার পর থেকে সুজনও পলাতক। তার মোবাইল নম্বরটিও বন্ধ। সুজনের স্ত্রী ও তিন সন্তান রয়েছে। এ অবস্থায় মেয়ে রিয়া আক্তারকে উদ্ধারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেন সফিকুল ইসলাম ও রানু আক্তার দম্পতি।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দক্ষিণখান থানার এসআই মো. রেজাউল বলেন, পুলিশের পক্ষ থেকে আসামিকে ধরার চেষ্টা চলছে। পুলিশ তার বাসাসহ একাধিক স্থানে অভিযান চালানো হয়েছে। কিন্তু সুজনকে পাওয়া যাচ্ছে না।