লক্ষ্মীপুরে একটি পরিবারের সবাইকে খাবারের সঙ্গে চেতনানাশক মিশিয়ে খাইয়ে বাড়িতে লুটপাট চালানো হয়েছে। এ ঘটনায় পরিবারটির ১০ সদস্যের সবাই অচেতন হয়ে পড়লে দুর্বৃত্তরা তাদের ঘরে থাকা নগদ টাকাসহ স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়।

বৃহস্পতিবার রাতে সদর উপজেলার মান্দারী ইউনিয়নের দক্ষিণ মটুবী গ্রামের দাসবাড়ির কানু লাল দাসের ঘরে এ ঘটনা ঘটে। ওই ১০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তারা হলেন কানু লাল দাস (৯০), কমলা রানী দাস (৭৫), রবি দাস (৪৮), সমীর দাস (৪৪), অংকর দাস (১৪), অহনা দাস (১২), নারায়ণ দাস (৭৫), লক্ষ্মী রানী দাস (৬৫), তিমু রানী দাস (২৮) ও কান্তি লাল দাস (৭৫)।

পুলিশ ও ওই পরিবারের স্বজনেরা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার রাতের খাবার খেয়ে পরিবারের ১০ সদস্য ঘুমাতে যান। ঘুমের মধ্যে তারা অচেতন হয়ে পড়েন। রাতের কোনো একসময় একজন জেগে ওঠেন ও কিছুটা স্বাভাবিক হন। এ সময় তিনি অন্যদের ঘুম থেকে জাগানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

একপর্যায়ে তিনি পরিবারের নারী সদস্যদের কারও কানে-গলায় স্বর্ণালংকার না দেখে চিৎকার করেন। পরে প্রতিবেশীরা এসে পুলিশে খবর দেন। শুক্রবার ভোরে পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

কানু লাল দাসের বড় ছেলে খাবার হোটেলের শ্রমিক রতন দাস বলেন, আমি রাতে হোটেলে ছিলাম। খবর পেয়ে বাড়িতে ছুটে যাই। কে বা কারা রাতের খাবারের সঙ্গে চেতনানাশক মিশিয়ে দিয়েছিল, সেই খাবার খেয়ে ঘরের সবাই অচেতন হয়ে পড়ে। এরপর দুর্বৃত্তরা টাকাসহ স্বর্ণালংকার লুটে নিয়ে গেছে।

এ বিষয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোসলেহ উদ্দিন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে অসুস্থ ব্যক্তিদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে।