রাজধানীর উত্তরখানের ভাটুলিয়া এলাকায় একটি বাড়িতে অস্ত্রের মুখে লুটপাটে জড়িত সন্দেহে চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত সোমবার ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা (ডিবি) বিভাগ এই অভিযান চালায়। গত ৪ এপ্রিল রাতে অস্ত্রের মুখে বাসিন্দাদের জিম্মি করে ওই বাড়ি থেকে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকারসহ ৮ লাখ টাকার মালপত্র লুট হয়।

গ্রেপ্তার চারজন হলেন- জাকির হোসেন, মো. সবুজ, মো. ওমর এবং ওসমান গণি স্বপন। তাঁদের কাছ থেকে স্বর্ণের একটি চেইন, ১৪ হাজার টাকা, চাপাতি ও ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন সরঞ্জাম জব্দ করা হয়।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ডিবি কর্মকর্তারা জানান, ডিবির উত্তরা বিভাগ গাজীপুরের টঙ্গীর নোয়াগাঁও এলাকার তিস্তা গেটের আনোয়ার সিলিং এবং পপুলার ওষুধ ফ্যাক্টরির সামনে থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করে। সেখানে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, ওই ঘটনায় মামলা হলে সেটি ডিবির উত্তরা বিভাগের বিমানবন্দর জোনাল টিম তদন্ত শুরু করে। তদন্ত করতে গিয়ে কর্মকর্তারা বুঝতে পারেন, ডাকাত দলের সদস্যরা প্রযুক্তির ব্যবহার করেনি, এমনকি ওই বাড়ি থেকে নানা কিছু লুট হলেও মোবাইল ফোন নেওয়া হয়নি। এজন্য রহস্য উদ্ঘাটনে সময় লাগে। তবে নানা তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে চক্রটিকে চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করা হয়।

ডিবিপ্রধান বলেন, গ্রেপ্তার জাকির হোসেনের নির্দেশেই অন্যরা ডাকাতি করে থাকে। ডাকাতির পর সব টাকা ও মালপত্র জাকির নিয়ে নেয়। বিনিময়ে সে দলের সদস্যদের পরিবারের দেখভাল করে। এর আগেও এরা নানা ডাকাতিতে জড়িত ছিল।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে হাফিজ আক্তার বলেন, রোজার ঈদের আগে থেকে ডিবি ডাকাত চক্রের সদস্যদের গ্রেপ্তারের অভিযান শুরু করে। এতে ওই ঈদে ডাকাতি হয়নি। এবার ঈদুল আজহার ছুটিতে যাতে ডাকাতি না হয়, সেজন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তা ছাড়া বর্ষা মৌসুমে ডাকাতি বেড়ে যেতে পারে। সেই বিষয়টিও তাদের মাথায় রয়েছে।