নিখোঁজের দু'দিন পর খোঁজ মিলল আশালয় হাউজিংয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আমিন মোহা. হিলালীর। রোববার রাত সাড়ে ১০টার পর সাভারের হেমায়েতপুরের তেঁতুলতলা এলাকায় কে বা কারা চোখ বেঁধে ফেলে রেখে যায় তাঁকে। এর আগে রোববার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) সংবাদ সম্মেলন করে হিলালীকে খুঁজে দেওয়ার অনুরোধ জানান তাঁর স্বজনরা।

গত শুক্রবার রাতে রাজধানীর উত্তরা ১০ নম্বর সেক্টরের বাসা থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হন হিলালী। এ নিয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে। তিনি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জমি কেনাবেচায় দুর্নীতির অভিযোগে করা মামলার ছয় নম্বর আসামি।

আমিন মোহা. হিলালীর ভাই রফিকুল ইসলাম সমকালকে জানান, রাত পৌনে ১১টায় তাঁর ভাই ফোন করে বলেছেন, 'আমাকে একটি গাড়ি থেকে চোখ বাঁধা অবস্থায় হেমায়েতপুরের তেঁতুলতলায় রাস্তার পাশে ফেলে রেখে গেছে। তোমরা আমাকে নিয়ে যাও।' রফিকুল জানান, তাঁর ভাই রাস্তার পাশে এক অটোরিকশা চালকের মোবাইল থেকে তাঁকে ফোন করেন। এরপরই তিনি উত্তরা পশ্চিম থানাকে বিষয়টি জানান। পরে হিলালীকে সাভার থানা পুলিশের সহযোগিতা নিতে বলা হয়। রাত ১টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত হিলালীর কাছে পৌঁছাতে পারেননি স্বজনরা। তাঁরা ঢাকা থেকে রওনা হয়েছেন। উত্তরা পশ্চিম থানার একটি দলও যাচ্ছে হেমায়েতপুরে।
এদিকে রোববার সকালে সংবাদ সম্মেলনে স্বজনরা বলেন, সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজ নিয়েও হিলালীর ব্যাপারে কিছু জানা যায়নি। এ পরিস্থিতিতে তাঁকে ফিরিয়ে দিতে সরকারের প্রতি আবেদন জানায় পরিবার।
সংশ্নিষ্টরা জানান, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জমি কেনাবেচার ক্ষেত্রে প্রায় ৩০৪ কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগে গত ৫ মে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মামলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের চার ট্রাস্টি ও আমিন হিলালীসহ ছয়জনকে আসামি করা হয়েছে। স্বজনরা বলছেন, জমি কেনাকাটায় ওই পরিমাণ অর্থ কমিশন বা ঘুষ দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে আমিনের বিরুদ্ধে। এ অভিযোগ সঠিক নয়।