ইন্টারনেট ব্যবহারকারী শিশু-কিশোর ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষ অন্যদের ও চেয়ে বেশি মাত্রায় অনলাইন হয়রানির ঝুঁকির মধ্যে থাকে। গুগলের সহযোগিতায় শিশুদের অনলাইনে নিরাপদ থাকা নিয়ে কাজ করবে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক।

বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে ব্র্যাক আয়োজিত 'অনলাইনে নিরাপদ থাকি' শীর্ষক প্রকল্পের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানানো হয়।

বিশ্বখ্যাত গুগল এ প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়নে ব্র্যাককে সহযোগিতা করছে। প্রকল্পের আওতায় ১২৫টি স্কুলের ১৬ হাজার ৪০০ শিক্ষার্থী ও ৬৪০ জন শিক্ষক অংশগ্রহণ করবেন। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পিইডিপি৪) ও অতিরিক্ত সচিব দিলীপ কুমার বণিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর পরিচালক এবং যুগ্ম সচিব (প্রশাসন, আর্থিক, বাস্তবায়ন) মো. নুরুজ্জামান শরিফ এনডিসি ও জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের সদস্য অধ্যাপক ড. রিয়াজুল হাসান।

এতে সভাপতিত্ব করেন ব্র্যাকের শিক্ষা, দক্ষতা উন্নয়ন ও অভিবাসন বিষয়ক পরিচালক সাফি রহমান খান। ভার্চুয়ালি অন্যদের মধ্যে যুক্ত হন - জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক মুহাম্মদ ফরহাদুল ইসলাম, গুগলের পাবলিক পলিসি বিষয়ক প্রধান কাইল গার্ডনার এবং কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) নাজমা আশরাফি।

দিলীপ কুমার বণিক বলেন, 'ডিজিটাল নিরাপত্তা নিশ্চিত করা খুব সহজ কাজ নয়। শিশুদের নিরাপদ অনলাইন ব্যবহারের দিকে নিয়ে যাওয়া অভিভাবকদের দায়িত্ব। তাই এ বিষয়ে তাদের সচেতন থাকা অত্যন্ত জরুরি।'

অধ্যাপক মুহাম্মদ ফরহাদুল ইসলাম বলেন, 'চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ফলে আগামী দিনে সেবার ক্ষেত্রে ব্যাপক পরিবর্তন আসবে। শিশুদেরকে এর বাইরে রাখা যাবে না। ইন্টারনেটের নেতিবাচক দিক এর নিরাপত্তা ঝুঁকি। এসব বিবেচনায় নিয়ে এনসিটিবি সম্পূর্ণ আলাদা একটি পাঠ্যক্রম যুক্ত করতে যাচ্ছে। ব্র্যাকের এই উদ্যোগে গুগল যুক্ত হয়েছে দেখে আমি আনন্দিত।'

নাজমা আশরাফি বলেন, 'বাচ্চারা অনলাইন প্রযুক্তিতে বাবা-মায়ের থেকে অগ্রসর হয়ে থাকে। এ বিষয়টি মাথায় রেখে শিশুদের অনলাইন নিরাপত্তাবিষয়ক শিক্ষার ওপর কাজ করতে হবে।'

ইউনিসেফের একটি সমীক্ষা অনুযায়ী বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ১০ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশু-কিশোরদের একটি বড় অংশ সাইবারভিত্তিক হয়রানির শিকার হয়ে থাকে।

আয়োজকরা জানান, প্রকল্পটির আওতায় শিক্ষার্থীদের জন্য নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহার বিষয়ক বৈচিত্রপূর্ণ শিক্ষা উপকরণ তৈরি করা হচ্ছে।