সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারী আইনজীবীদের সনদ বাতিল ও তাদের গ্রেপ্তারে ৭২ ঘণ্টার সময় বেঁধে দিয়েছে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে)। বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর জামালখান চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল থেকে এ আল্টিমেটাম দেন সাংবাদিক নেতারা। অন্যথায় সারাদেশের সাংবাদিকদের নিয়ে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণার হুঁশিয়ারি দেন তারা। সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

এদিকে বুধবার গভীর রাতে দুইজনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও ১০-১২ জনকে আসামি করে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন হামলার শিকার সাংবাদিক আল আমিন শিকদার। নাম উল্লেখ করা দুই আসামি হলেন- লোহাগাড়া থানার পূর্ব কলাউজান গ্রামের আবদুর রশিদের ছেলে সাহেদুল হক (৩৫) ও একই থানার আধুনগর আকতারিয়াপাড়া গ্রামের আহমদ মিয়ার ছেলে ইসহাক আহমেদ (৩০)।

প্রসঙ্গত, বুধবার বিকেলে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে চট্টগ্রামের আদালত চত্বরে হামলার শিকার হন যমুনা টেলিভিশনের রিপোর্টার আল আমিন শিকদার ও ক্যামেরাপারসন সৈয়দ আসাদুজ্জামান লিমন।

বৃহস্পতিবার সমাবেশে সিইউজে সভাপতি মোহাম্মদ আলী বলেন, দেশবিরোধী কোনো গোষ্ঠীর ইন্ধনে আইনজীবী পরিচয়ে সাংবাদিকদের ওপর এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। কারণ, জঙ্গি হামলার রায়ের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে দুই সাংবাদিক হামলার শিকার হয়েছেন। দোষীদের চিহ্নিত করে আইনজীবী সমিতিকে তাদের সদস্যপদ বাতিলসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। তিনদিনের মধ্যে তাদের আইনজীবী সনদ বাতিল না করলে সাংবাদিক সমাজ কঠোর কর্মসূচি দেবে।

সমাবেশে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি আলী আব্বাস বলেন, দেশে গণমাধ্যমকর্মীদের ওপর অব্যাহত হামলা দুঃখজনক। বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে বারবার সাংবাদিকদের ওপর এ ধরনের হামলার ঘটনা ঘটছে। দোষীরা যাতে কোনোভাবে পার না পায়, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তা নিশ্চিত করতে হবে।

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ বলেন, আইনজীবী পরিচয়ে কীভাবে আদালতপাড়ায় এ বেআইনি ন্যক্কারজনক হামলা হলো, তা রহস্যজনক। কয়েকজন উচ্ছৃঙ্খল আইনজীবী চট্টগ্রাম আদালতে কর্মরত দশ হাজার আইনজীবীর প্রতিনিধিত্ব করতে পারে না। আইনজীবী সমিতিকেই দোষীদের চিহ্নিত করতে হবে।

সিইউজে সাধারণ সম্পাদক ম. শামসুল ইসলাম বলেন, নগরীর নিউমার্কেট এলাকায় সাংবাদিক প্রীতম দাশের ওপর হামলার ঘটনার সপ্তাহ না যেতেই আদালত প্রাঙ্গনে আরও দুই সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার ভিডিও ফুটেজ, ছবিসহ সুস্পষ্ট প্রমাণ থাকার পরও যদি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়, তা হবে অত্যন্ত দুঃখজনক। সাংবাদিক সমাজ দেশের আপামর জনসাধারণকে নিয়ে এসব দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে।

সিউজের যুগ্ম সম্পাদক সবুর শুভর সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন সিইউজের সিনিয়র সহসভাপতি রতন কান্তি দেবাশীষ, সহসভাপতি অনিন্দ্য টিটো, বিএফইউজের যুগ্ম মহাসচিব মহসিন কাজী, সাবেক যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী, চট্টগ্রাম টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নাসির উদ্দিন তোতা, সাধারণ সম্পাদক লতিফা আনসারী রুনা, বিএফইউজের নির্বাহী সদস্য আজহার মাহমুদ, প্রণব বড়ুয়া অর্ণব, সিইউজের টিভি ইউনিট প্রধান মাসুদুল হক, চট্টগ্রাম ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক রাজেশ চক্রবর্তী, চট্টগ্রাম টিভি ক্যামেরা জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন ও যমুনা টিভির ব্যুরো প্রধান জামশেদ রেহমান চৌধুরী প্রমুখ।

এছাড়াও সমাবেশে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি এইচ এম মুজিবুল হক শুক্কুরসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত হয়ে সংহতি প্রকাশ করেন।