চট্টগ্রাম নগরের দক্ষিণ পাহাড়তলী থানাধীন ঝর্নাপাড়ায় নিবন্ধনবিহীন মাতৃসেবা নরমাল ডেলিভারি সেন্টারে অক্সিজেনের অভাবে দুই জমজ নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। মামলায় দুইজনকে আসামি করা হয়েছে। আটকের পর দুইজনকে শুক্রবার কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আটক দুজন হলেন- বৃষ্টি রাণী দে (৩৩) ও নাসরীন বেগম (৩৯)। তারা দুজনই ওই প্রতিষ্ঠানের ধাত্রী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এর আগে গত বৃহস্পতিবার এ ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা নিতে ডবলমুরিং থানায় চিঠি দেয় চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন কার্যালয়।

ডবলমুরিং থানার ওসি মো. সাখাওয়াৎ হোসেন সমকালকে বলেন, নরমাল ডেলিভারি সেন্টারে দুই জমজ নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনায় প্রতিষ্ঠানের মালিক ও সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে সিভিল সার্জন আমাদেরকে একটি চিঠি দিয়েছেন। তার প্রেক্ষিতে পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা করেছে। মামলায় দুজনকে আসামি করা হয়েছে। তাদেরকে আটকের পর কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মামলার আগেই আমরা প্রতিষ্ঠানের চারজনকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি।

সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াস চৌধুরী বলেন, ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে অবহেলায় দুই জমজ নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়ার পর এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নিতে থানায় চিঠি দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে পুলিশ কাজ শুরু করেছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আমাদেরকে আশ্বস্ত করা হয়েছে। সিভিল সার্জনের চিঠিতে প্রতিষ্ঠানটি অবৈধভাবে পরিচালিত হচ্ছে বলে উল্লেখ করা হয়।

গত ৬ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার দিকে মাতৃসেবা নরমাল ডেলিভারি সেন্টারে অটোটেম্পু চালক মো. মনিরের স্ত্রী লাভলি বেগম দুই যমজ নবজাতকের জন্ম দেন। মনির-লাভলি দম্পতি অভিযোগ করেন, ১০ হাজার টাকা বিল পরিশোধ করতে না পারায় নবজাতকদের আটকে রাখা হয়। অন্য হাসপাতালে নিতে চাইলেও দেয়নি তারা। এ কারণে একপর্যায়ে একটি শিশু মারা যায়। পরে চমেক হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যায় অপর শিশুটিও।