গৃহবধূ মোর্শেদা আক্তার সাথীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যারচেষ্টার ঘটনায় তীব্র নিন্দা এবং এ ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম। বুধবার সংগঠনটির সভাপতি প্রকৌশলী শম্পা বসু ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট দিলরুবা নূরী স্বাক্ষরিত এক যৌথ বিবৃতিতে এ দাবি জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, গৃহবধূ মোর্শেদা আক্তার সাথীকে দীর্ঘদিন ধরে তার স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন নির্যাতন করে আসছিল। এ বিষয়ে তিনি নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা করেন। এরপর ক্ষুব্ধ হয়ে গত ২৩ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টার দিকে মোর্শেদা আক্তারকে তার ননদ লুনাসহ তিনজন মিলে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় মোর্শেদার মুখমণ্ডল, বুক, পেট, শ্বাসনালীসহ শরীরের ৩০ শতাংশ পুড়ে যায়। পরে তারা মোর্শেদাকে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ফেলে আসে। উন্নত চিকিৎসার জন্য মোর্শেদাকে ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে পাঠানো হয়। বার্ন ইনস্টিটিউটের আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন তিনি।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, মোর্শেদা আক্তার অত্যন্ত দরিদ্র। তারপরও তিনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন। বিভিন্ন সময় তিনি মহিলা ফোরামের বিভিন্ন নারী নির্যাতনবিরোধী কর্মসূচিতে অংশ নিতেন। এ ধরনের ঘটনা অত্যন্ত মর্মান্তিক ও ন্যাক্কারজনক। গত শুক্রবার এই ঘটনা ঘটলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখানো কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বা কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। মোর্শেদা আক্তারের ওপর এই নৃশংস হামলার তীব্র নিন্দা এবং অবিলম্বে এই ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানানো হয় বিবৃতিতে।