ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

কারাগারে বডিবিল্ডারের মৃত্যু: যা জানাল পুলিশ

কারাগারে বডিবিল্ডারের মৃত্যু: যা জানাল পুলিশ

ফাইল ছবি

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ২১:১৪

রাজধানীর পুরান ঢাকার বংশাল থানার কায়েৎটুলি পুলিশ ফাঁড়িতে মাদক বহনের অভিযোগে বডিবিল্ডার ফারুক হোসেনকে আটক করে নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে। পরে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। কারাগারে নেওয়ার একদিন পর তার মৃত্যু হয়। এ নিয়ে তার স্ত্রী গণমাধ্যমে পুলিশ হেফাজতে বডিবিল্ডার ফারুকের মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ করেন। ফারুকের স্ত্রীর অভিযোগের প্রতিবাদ জানিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

সোমবার বিকেলে ডিএমপির মিডিয়া বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ (এডিসি) কে এন রায় নিয়তি লিখিত একটি প্রতিবাদ গণমাধ্যমে পাঠান। তবে মিডিয়া বিভাগ থেকে পাঠানো লিখিত বক্তব্যে কোনো কর্মকর্তার স্বাক্ষর ছিল না।

গণমাধ্যমে মৃত ফারুক হোসেনের স্ত্রী ইমা আক্তার হ্যাপির বলেন, ‘কায়েৎটুলি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই ইমদাদুল হকসহ ফাঁড়ির পুলিশ সদস্যরা মাদক বহনের নাটক সাজিয়ে ফারুককে ধরে নিয়ে যায়। পরে ছেড়ে দেওয়ার জন্য তার কাছে টাকা দাবি করে পুলিশ। টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় শারীরিক নির্যাতন এবং হ্যান্ডকাফ পরিয়ে ফারুককে ফাঁড়িতে বসিয়ে রাখা হয়। স্বামীকে আটকের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ফাঁড়িতে গেলে পুলিশ সদস্যরা প্রথমে এক লাখ ও পরে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। কিন্তু টাকা দিতে আমি রাজি হয়নি। এ সময় ফারুককে ছেড়ে দেওয়ার জন্য এসআই ইমদাদসহ পুলিশের হাতে পায়ে ধরে অনুরোধ করি। টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় ফারুককে ছেড়ে দেওয়ার বিনিময়ে পুলিশ সদস্যরা কুপ্রস্তাব দেন। তাদের কুপ্রস্তাবে রাজি হলে ফারুককে তারা ছেড়ে দেবে বলে জানান তারা।’

মৃতের স্ত্রীর এই বক্তব্যের ব্যাখ্যায় ডিএমপি বলছে,  ঘটনার প্রকৃত সত্য হচ্ছে, ১২ জানুয়ারি বংশাল থানার নাজিমউদ্দিন রোডে নিয়মিত চেকপোস্টে তল্লাশির সময় ফারুক হোসেনকে ২৫০ গ্রাম গাঁজাসহ আটক করা হয়। আসামিকে নিরাপদে থানায় নিয়ে যাওয়ার জন্য গাড়ি আসতে দেড়ি হওয়ায় কায়েৎটুলি ফাঁড়িতে নিয়ে বসিয়ে রাখা হয়। 

ফাঁড়ির সামনের আগামাছি লেনের ৫০/১ বাড়িতে থাকা সিসিটিভি ক্যামেরায় দেখা যায়, ১২ জানুয়ারি রাত ৯টা ২২ মিনিট ২০ সেকেন্ডে এসআই ইমদাদুল বাইকে পুলিশ ফাঁড়ি থেকে বের হচ্ছেন। অপরদিকে আসামির স্ত্রী ইমা আক্তার ফাঁড়িতে প্রবেশ করেন রাত ৯টা ৫০মিনিটে ৪০ সেকেন্ডে। ইমা ফাঁড়ি থেকে বের হন রাত ১০টা ২৫ মিনিটে ১০ সেকেন্ডে। পরে এসআই ইমদাদুল ফাঁড়িতে প্রবেশ করেন রাত ১০টা ২৮ মিনিটে। সুতারং এসআই ইমদাদুল হকের সঙ্গে আসামির স্ত্রীর দেখা হয়নি। এছাড়া ইমার মোবাইল ফোনের কল লিস্ট পর্যালোচনা করে দেখা যায়, এসআই ইমদাদুলের সঙ্গে ফোনেও যোগাযোগ হয়নি। সুতারং কোনো পুলিশ সদস্যের মাধ্যমে আসামিকে শারীরিক নির্যাতন কিংবা তার কাছ থেকে টাকা দাবি করা এবং কুপ্রস্তাব দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটেনি।

গণমাধ্যম ইমা দাবি করেছে, তার স্বামী ফারুককে বংশাল থানা হাজতে নেওয়ার পরেও শারীরিকভাবে নির্যাতন করা হয়েছে। 

এ দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ডিএমপি বলছে, এ ঘটনার প্রকৃত সত্য হচ্ছে, ১২ জানুয়ারি কায়েৎটুলি ফাঁড়ি থেকে ফারুককে সুস্থ শরীরে বংশাল থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের করা মামলায় তাকে আদালতে পাঠানো হয়। থানা হাজতে প্রবেশ ও পরের দিন আদালতের উদ্দেশে রওনা দেওয়া পর্যন্ত সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, আসামিকে নির্যাতনের চিত্র পাওয়া যায়নি। আসামিকে হাজতখানার মধ্যে সম্পূর্ণ স্বাভাবিক আচরণ করতে দেখা গেছে। পরে ১৩ জানুয়ারি আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করে ডিএমপির প্রসিকিউশন বিভাগের হাজতখানায় পাঠানো করা হয়। সেখানে তাকে প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। আদালত আসামির জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। সেখানেও আসামি ফারুকের প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। প্রত্যেকটি স্বাস্থ্য পরীক্ষায় তার শরীরে কোনো প্রকার আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি। আঘাতের চিহ্ন থাকলে যথাযথ কারণ ছাড়া ডিএমপির প্রসিকিউশন বিভাগ ও কেন্দ্রীয় কারাগার কখনও আসামি গ্রহণ করে না। ফলে এই থেকে প্রমাণিত হয়, আসামি ফারুককে কায়েৎটুলি ফাঁড়ি থেকে বংশাল থানায় এবং বংশাল থানা থেকে আদালতে সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় পাঠানো হয়েছে।

গণমাধ্যমে ইমা আরও দাবি করেন, ঘটনার দিন রাতে দুই বছরের শিশু সন্তানসহ তিনি স্বামীকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য বংশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মইনুল ইসলামের হাতেপায়ে ধরে অনুরোধ করেন। অথচ বংশাল থানার ওসি মইনুল ১২ জানুয়ারি বিকেলে থেকে রাত পর্যন্ত পারিবারিক অনুষ্ঠানে শেরে বাংলা নগর থানার কাফরুল এলাকায় অবস্থান করছিলেন।

এর ব্যাখ্যায় ডিএমপি জানিয়েছে, ১৩ জানুয়ারি কারাগারে পাঠানো পর ১৪ জানুয়ারি ফারুক কারাগারে অসুস্থ বোধ করলে প্রথমে তাকে কারা হাসপাতালে ভর্তি হয়। পরে ১৫ জানুয়ারি রাত ১২টা ৫০ মিনিটে কারা কর্তৃপক্ষ তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ডেপুটি জেলার সৈয়দ হাসান আলী বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেন। কারা হাসপাতালের চিকিৎসক ও সহকারী সার্জন ডাক্তার তানভির স্বাক্ষরিত এক প্রেসক্রিপসনে আসামির অসুস্থতার কারণ সম্পর্কে মাদকাসক্তি ও ব্লাড প্রেসার লো (৮০/৫০) থাকার কথা উল্লেখ করেছেন। ঢাকা জেলার সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পায়রা চৌধুরী মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করেন। সেখানে মরদেহে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলে উল্লেখ করেন। এছাড়া ঢাকা মেডিকেল কলেজের (ঢামেক) ফরেনসিক বিভাগের ডাক্তার ফাহমিদা নার্গিস ময়নাতদন্ত করেন এবং মরদেহের ভিসেরা পরীক্ষার জন্য সংরক্ষণ করেন। ফাহামিদা নার্গিস স্বাক্ষরিত প্রাথমিক ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে মরদেহের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলে উল্লেখ করেন। এছাড়াও রোগ অথবা জখমের বিস্তারিত বিবরণ কলামে উল্লেখ করেন ‘ফাইব্রোটিক পরিবর্তনের উপস্থিতিসহ হার্ট বড় পাওয়া গেছে’ পূর্ণাঙ্গ ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ভিসেরা পরীক্ষা শেষে প্রদান করা হবে।

আরও পড়ুন

×