ঢাকা শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

৪ লাশবাহী গাড়িতে একই পরিবারের ৫ লাশ

৪ লাশবাহী গাড়িতে একই পরিবারের ৫ লাশ

শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে চারটি লাশবাহী গাড়িতে মরদেহগুলো ‘স্বপ্নচূড়া’য় আনা হয়। ছবি: সমকাল

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০১ মার্চ ২০২৪ | ১৩:২২ | আপডেট: ০১ মার্চ ২০২৪ | ১৬:০১

রাজধানীর বেইলি রোডের ছয়তলা ভবনে লাগা আগুনে পুড়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬ জনে দাঁড়িয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছেন একই পরিবারের ৫ সদস্য। তাদের মরদেহ মধুবাগের ‘স্বপ্নচূড়া’ ভবনে পৌঁছেছে। আজ শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে চারটি লাশবাহী গাড়িতে মরদেহগুলো আনা হয়।

নিহতরা হলেন- ইতালি প্রবাসী সৈয়দ মোবারকসহ (৪২), তার স্ত্রী স্বপ্না (৩৮), মেয়ে সৈয়দা তাশফি (১৭), ছেলে সৈয়দা নূর (১৫) ও সৈয়দ আব্দুল্লাহ। 

মোবারকের চাচাতো ভাই সৈয়দ ফয়সাল বলেন, সৈয়দ মোবারকের ইতালির গ্রিন কার্ড রয়েছে। গত ২২ জানুয়ারি তিনি দেশে আসেন। কথা ছিল পরিবার নিয়ে ইতালিতে গিয়ে থিতু হওয়ার। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাতে বেইলি রোডের ভয়াবহ আগুন তাদেরকে বাধ্য করল তারা না ফেরার দেশে পাড়ি জমাতে। 

পরিবারের সঙ্গে সৈয়দ মোবারকসহ (৪২), তার স্ত্রী স্বপ্না (৩৮), মেয়ে সৈয়দা তাশফি (১৭) ও সৈয়দ আব্দুল্লাহ (লাল বৃত্ত চিহ্নিত)।

তিনি বলেন, তারা রাত ৮টার দিকে সৈয়দ মোবারক তার স্ত্রী স্বপ্না (৩৮), মেয়ে সৈয়দা তাশফি (১৭), ছেলে সৈয়দা নূর (১৫) ও সৈয়দ আব্দুল্লাহকে নিয়ে বাসা থেকে বের হন 'কাচ্চি ভাইতে' খাওয়ার জন্য। তারা সেখানে পৌঁছানোর পর এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে তারা সবাই মারা যান। 

আরও পড়ুন আগুনের সূত্রপাত নিচতলায়, নামতে গিয়ে পুড়ে যায় অনেকে: র‌্যাবের ডিজি

বেইলি রোডে আগুন: নিহত বেড়ে ৪৬, পরিচয় মিলেছে যাদের

নিহত বেড়ে ৪৬, শঙ্কামুক্ত নন দগ্ধ ১২

‘স্বপ্নচূড়া’ ভবনের বি-৩ ফ্ল্যাটে থাকতেন মোবারকের পরিবার। সৈয়দ ফয়সাল বলেন, মোবারকের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামে। 

আজ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে প্রথমে মরদেহ পাঁচটি গোসলের জন্য ধানমন্ডিতে নেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে প্রতিবেশীদের চাওয়ায় লাশবাহী গাড়িতে করে মধুবাগে নেওয়া হয়। 

স্বপ্নচূড়ার কেয়ারটেকার বাবর আলী সমকালকে জানান,  সৈয়দ মোবারক পরিবার নিয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে খেতে গিয়েছিলেন। তারা সেখানে পৌঁছানোর পর এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে তারা সবাই মারা যান। 

ওই বাসার গৃহকর্মী হাজেরা বেগম বলেন, বিকেলে পোলাও রান্না করেছিলাম। তখনও জানাতাম না তারা রেস্টুরেন্টে খেতে যাবে। 

শুক্রবার সকালে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেছেন, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬ জনে দাঁড়িয়েছে। আহত অবস্থায় ১২ জন হাসপাতালে ভর্তি আছেন। এদের মধ্যে বার্ন ইউনিটে ১০ জন ভর্তি এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ ২ জন ভর্তি আছেন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। 

এর আগে বৃহস্পতিবার রাত ৯টা ৪৫ মিনিটের দিকে বেইলি রোডে ছয়তলা ভবনে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিটের চেষ্টায় রাত ১১টা ৫০ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

 

আরও পড়ুন

×