দেশের কলকারখানায় শিশুশ্রমিক নিয়োগকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে শিশু-কিশোর সংগঠন খেলাঘর।

সংগঠনের নেতারা বলেছেন, দেশে প্রচলিত ও আন্তর্জাতিক আইন উপেক্ষা করে কারখানায় শিশুশ্রমিক নিয়োগ ও নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত না করায় নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সেজান জুস কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে শিশুসহ ৫২ জনের মৃত্যু হয়েছে। যাদের অবহেলা ও উদাসীনতায় এই প্রাণহানি ঘটেছে তাদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

শুক্রবার রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে খেলাঘর আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে নেতারা এই দাবি জানান।

রূপগঞ্জে কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি এবং নিহতদের জন্য আর্থিক ক্ষতিপূরণ ও আহতদের চিকিৎসা দেওয়ার দাবিতে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

খেলাঘরের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কামাল চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক প্রণয় সাহার পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন খেলাঘর নেতা আবদুল মতিন ভূঁইয়া, শফিকুর রহমান শহীদ, হান্নান চৌধুরী, রাজন ভট্টাচার্য, নসরু কামাল খান, আশরাফিয়া আলী আহমেদ নান্তু, শামীম আহমেদ, সুজন মজুমদার, জিতু জলিল প্রমুখ।

মানববন্ধন থেকে দেশের সব কারখানায় শিশুশ্রমিক চিহ্নিত করতে শিশু সংগঠন হিসেবে খেলাঘরের প্রতিনিধি রেখে সরকারি পর্যায়ে একটি বিশেষ কমিটি গঠন, যেসব কারখানায় শিশুশ্রমিক পাওয়া যাবে সেসব কারখানা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা, বিল্ডিং কোড মেনে ভবন নির্মাণ, কলকারখানা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরকে সক্রিয় করা, কারখানায় শ্রম আইন বাস্তবায়ন এবং নিরাপদ ও স্বাস্থ্যকর কারখানা নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয়। 

নেতারা বলেন, সেজান জুস কারখানায় শ্রমিকদের মৃত্যুর ঘটনা পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। এর দায় কারখানা কর্তৃপক্ষ, কলকারখানা পরিদর্শন অধিদপ্তর এবং সংশ্নিষ্ট বিভাগ ও মন্ত্রণালয় কোনোভাবেই এড়াতে পারে না।