চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ছাত্রলীগের দু'পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এতে চারজন আহত হয়েছেন। শুক্রবার জুমার নামাজের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহজালাল ও শাহ আমানত হলে এ ঘটনা ঘটে। 

গুরুতর জখম দু'জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে চিকিৎসা দেওয়া হয়। চবি শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি রেজাউল হক রুবেলের 'সিএফসি' এবং সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন টিপুর 'সিক্সটি নাইন' পক্ষের মধ্যে এ মারামারি হয়।

ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাংলা বিভাগের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিহাব আরমান নামে সিপটি নাইন পক্ষের এক কর্মীকে মারধর করেন সিএফসি পক্ষের কর্মীরা। এর জের ধরে শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে সিএফসির কর্মীরা আমানত হলে প্রবেশ করতে গেলে সিক্সটি নাইন পক্ষের কর্মীরা তাদের ওপর হামলা করে। পরে উভয়পক্ষ মারামারিতে জড়ায়।

আহতরা হলেন- সিপটি নাইনের কর্মী ইতিহাস বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী নাদিম হায়দার, অর্থনীতি বিভাগের মিশো মুমিনুল এবং ব্যবস্থাপনা বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের মাহমুদ রাফি, সিএফসির কর্মী ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের মো. আরাফাত। এর মধ্যে গুরুতর আহত নাদিম ও মিশো মুমিনুলকে চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ইকবাল হোসেন টিপু বলেন, আহতদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করছি। এসব কাজে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

সভাপতি রেজাউল হক রুবেল বলেন, জুমার নামাজ শেষে আসার পথে আমাদের এক কর্মীকে মেরেছে সিক্সটি নাইনের ছেলেরা। এখন পরিস্থিতি শান্ত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর রবিউল হাসান ভূঁইয়া বলেন, ছাত্রলীগের দু'পক্ষের মধ্যে ঝামেলা হয়েছিল। পুলিশ ক্যাম্পাসে অবস্থান নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে।