সরকারি চাকরিতে নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেত্রী মাহবুবা নাসরিন রূপাকে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। 

রোববার বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আল রাজী জুয়েল স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করায় তাকে অব্যাহতি দেওয়া হলো। 

এর আগে শুক্রবার রাতে প্রতিরক্ষা মহাহিসাব নিরীক্ষকের কার্যালয়ের অডিটর নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত থাকার অভিযোগে রূপা ও মাহমুদুল হাসান আজাদ এবং প্রতিরক্ষা মহাহিসাব নিয়ন্ত্রক কার্যালয় থেকে ইতিপূর্বে বরখাস্ত এক কর্মকর্তাসহ ১০জনকে ঢাকার কাফরুল ও কাকরাইল থেকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। 

গ্রেপ্তার অন্য আট জন হলেন- আল আমিন রনি, নোমান সিদ্দিকী, নাহিদ হাসান, তানজির আহমেদ, শহীদ উল্লাহ, রাজু আহমেদ, রাকিবুল হাসান ও হাসিবুল হাসান। শনিবার এক ব্রিফিংয়ে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তার জানান, মাহবুবা নাসরীন রূপা ও মাহমুদুল আজাদ নিয়োগের কথা বলে চাকরি প্রার্থীদের জড়ো করতেন। 

তিনি বলেন, ওই চক্রের সদস্যরাই পরীক্ষার্থী সেজে কেন্দ্রে ডিজিটাল ডিভাইস নিয়ে যান। প্রশ্ন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে তারা ডিভাইসের মাধ্যমে অন্য সদস্যদের কাছে পাঠিয়ে দেন। বাইরে থেকে তারা প্রশ্ন সমাধান পাঠিয়ে দেন কেন্দ্রে। চাকরি প্রার্থীদের এভাবেই তারা পাস করাতেন। প্রত্যেক চাকরি প্রার্থীর কাছ থেকে তারা ১৬ লাখ টাকা করে নিতেন। অগ্রিম হিসেবে নিতেন দুই থেকে পাঁচ লাখ টাকা।

ঢাকা ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক নেত্রী মাহবুবা নাসরিন রূপা ২০১৯ সালের মার্চে তার নিজ এলাকা বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলা পরিষদে ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশ নেন। নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর পরই তাকে বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য করা হয়।