চাকরি স্থায়ীকরণে দাবিতে আন্দোলনে নামা রেলওয়ের গেটকিপাররা ১৫ দিন কমলাপুরে অণশন করার পর রোববার রাজধানীর রেলভবনে সামনে অবস্থান নেন। এসময় ফটকের সামনে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনের পথ আটকে মন্ত্রীর কাছে চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি জানান তারা।

সারাদেশে রেলের লেভেল ক্রসিং খালি রেখে গেটকিপাররা ঢাকায় এসে আন্দোলন করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, এ প্রকল্পের মেয়াদ আরও তিন বছর বাড়বে। কিন্তু প্রকল্পের আওতায় অস্থায়ী ভিত্তিতে যাদের নিয়োগ করা হয়েছে, তাদের চাকরি স্থায়ী করার সুযোগ নেই।
২০১৫ সালে রেলওয়ের পূর্ব ও পশ্চিমাঞ্চলের ৬৫৪টি লেভেল ক্রসিংয়ের মান উন্নয়নে পৃথক দুটি প্রকল্প নেয় রেল। এতে অস্থায়ীভাবে এক হাজার ৮৮৯ জন গেটকিপার নিয়োগ করা হয়।

আগামী ৩০ জুন প্রকল্পের মেয়াদ শেষে তাদের চাকরি থাকবে না। যদিও রেলপথ মন্ত্রলালয় প্রকল্প দু'টির মেয়াদ তিন বছর বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে। অস্থায়ী নিয়োগপ্রাপ্তরা প্রকল্পের মেয়াদ পর্যন্ত চাকরি করতে পারবেন।
তবে চাকরি স্থায়ী করার দাবিতে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে কমলাপুরের প্রশাসনিক ভবনের নামনে অণশন করছেন গেটকিপাররা। রোববার তারা সচিবালয় সংলগ্ন রেলেভবনের প্রবেশ পথে অবস্থান নেন।

এসময় মন্ত্রী তাদের বলেন, 'তোমরা গেইটগুলো বাদ দিয়ে এখানে আসছ। অণশন করছ, অমুক করছ। কি দরকার এগুলো করার?'

গেটকিপাররা বক্তব্য তুলে ধরতে চাইলে মন্ত্রী তাদের থামিয়ে দিয়ে বলেন, এভাবে আসা ঠিক হয়নি। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলতে পারতে। তোমাদের চাকরি কি চলে গেছে। আরও তিন বছরের জন্য প্রকল্প বাড়ছে।
এ সময় গেটকিপাররা সমস্বরে বলেন, তারা স্থায়ী চাকরি চান। চাকরির নিরাপত্তা চান। এতে ক্ষুব্ধ মন্ত্রী বলেন, 'তোমার কি পার্মানেন্ট চাকরিতে ঢুকছিলা? আন্দোলন বাদ দিয়ে কাজে যাও।'
আন্দোলনকারীদের সমন্বয়ক আল মামুন বলেছেন, ১৫ দিন ধরে আন্দোলন করলেও তারা এখন পর্যন্ত চাকরি স্থায়ীকরণের আশ্বাস পাননি। অণশন অব্যাহত রেখে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।