বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেছেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ডের কুশীলব ছিলেন জিয়াউর রহমান। আর ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার কুশীলব জিয়াপুত্র তারেক রহমান।

বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে সম্মিলিত ইসলামী জোট আয়োজিত ‘১৫ আগস্ট এবং ২১ আগস্ট নৃশংস হত্যাকাণ্ড: জেনারেল জিয়া থেকে তারেক জিয়া' শীর্ষক আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

মূল প্রবন্ধে শামসুদ্দিন চৌধুরী বলেন, পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশ থেকে মুক্তিযুদ্ধের নাম মুছে ফেলা। ২১ আগস্টের হামলার উদ্দেশ্য ছিল পঁচাত্তরে বেঁচে যাওয়া বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যা করা। এই দুটি হত্যাকাণ্ডের হত্যাকারীদের রক্তের মিল আছে। দুটি ঘটনারই কুশীলব ছিলেন পিতা-পুত্র। ১৫ আগস্টের ষড়যন্ত্র ছিল সে সময়ের সরকারের বিরুদ্ধে। আর ২১ আগস্টের ষড়যন্ত্র ছিল প্রশাসনকে ব্যবহার করে সরকারের নির্দেশে। ১৫ আগস্টের ঘটনায় বেশ কয়েকজন মন্ত্রী অংশ নিয়েছিলেন। আর ২১ আগস্টের হামলার ঘটনায় বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীরা অংশ নিয়েছিলেন বলে বিচারিক আদালতই বলেছেন।

সভায় সভাপতিত্ব করেন সম্মিলিত ইসলামী জোটের সভাপতি জিয়াউল হাসান। বক্তব্য দেন সিনিয়র সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবহান মিয়া, সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা মাওলানা আবুল হোসেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রকাশনা অগ্রপথিক সম্পাদক আনোয়ার কবির প্রমুখ।