কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সোমবার মধ্য রাতে দেশীয় অস্ত্র চাপাতি নিয়ে বহিরাগত এক যুবক প্রবেশ করে। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে প্রক্টরিয়াল বডি, নিরাপত্তাকর্মী এবং শিক্ষার্থীদের সম্মিলিত সহযোগিতায় মূল ফটকের সামনে থেকে তাকে আটক করা হয়।

ওই যুবককে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এবং তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা গেছে, সে মানসিকভাবে অসুস্থ। পরে পুলিশের মধ্যস্থতায় তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাত প্রায় সাড়ে ১১টার পর ওই যুবককে চাপাতিসদৃশ অস্ত্র নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস এবং হলে ঘুরাঘুরি করতে দেখা যায়। পরে হল থেকে বের হয়ে সে মূল ফটকসংলগ্ন মামা হোটেলের সামনে গেলে সেখানে নিরাপত্তাকর্মীরা আটক করে। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর ফয়জুল ইসলাম ফিরোজ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাকে প্রক্টর অফিসে নিয়ে যান। এ ঘটনায় শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

প্রক্টরিয়াল বডির জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, তার নাম নুরন্নবী নিলয়, বাবার নাম জাহাঙ্গীর। বাড়ি কুমিল্লা সদর উপজেলার বাংলাবাজার-সংলগ্ন ২৩ নম্বর গেট এলাকায়। যুবকের কাছ থেকে দেশি অস্ত্র, হিন্দিতে লেখা একটি চিরকূট, একটি এটিএম কার্ড ও কম্পিউটার চিপ পাওয়া যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দীন বলেন, আমাদের মেইন গেট এবং হলগুলোয় নিরাপত্তাকর্মীরা দায়িত্বে থাকার পর অস্ত্রসহ এভাবে বহিরাগতদের প্রবেশ উদ্বেগজনক। কোটবাড়ী পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক জেসমিন চাকমা বলেন, মনে হয়েছে ছেলেটি মানসিকভাবে অসুস্থ।