উচ্চ রক্তচাপ একটি নীরব ঘাতক।  এটি নিয়ন্ত্রণে না থাকলে স্ট্রোক ও হৃদ্‌রোগের মতো কঠিন রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। দৈনন্দিন কিছু কিছু অভ্যাস উচ্চ রক্তচাপ বাড়িয়ে দিতে পারে। যেমন-

অতিরিক্ত লবণ খাওয়া
: লবণে থাকা সোডিয়াম রক্তচাপ বাড়িয়ে দিতে পারে। শুধু খাবারে পরিমাণ মতো লবণ খাওয়াই সোডিয়ামের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে যথেষ্ট নয়। বাজারজাত নানা খাদ্যে অতিরিক্ত লবণ থাকলে তা উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা বাড়িয়ে দিতে পারে।

মানসিক চাপ
: সাধারণত মানসিক চাপ সংক্রান্ত উচ্চ রক্তচাপ ক্ষণস্থায়ী হয়। অর্থাৎ মানসিক চাপ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রক্তচাপ বাড়লেও উত্তেজনা প্রশমিত হলে রক্তচাপ আবার স্বাভাবিক হয়ে যায়। কিন্তু কোনও ব্যক্তি দীর্ঘ দিন ধরে মানসিক চাপে ভুগলে ক্ষতি হতে পারে রক্তপ্রবাহের।

অনিদ্রা: জার্নাল অব ক্লিনিকাল হাইপারটেনশনের একটি গবেষণা পত্র বলছে, অনিদ্রায় সমস্যায় ভোগা ব্যক্তিদের উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রায় ৪৮ শতাংশ বেশি। পাশাপাশি অনিদ্রা ও মানসিক চাপ পরস্পর সম্পর্কযুক্ত। এ কারণে অনিদ্রার কারণে মানসিক চাপ বাড়তে পারে। এতে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যাও বেড়ে যেতে পারে।

অ্যালকোহল পান
: অতিরিক্ত অ্যালকোহল রক্তবাহী শিরা ও ধমনীর ভিতরের গহ্বর অপ্রশস্ত করে। ফলে রক্ত সঞ্চালনে সমস্যা দেখা দেয়, যা রক্তচাপ বৃদ্ধি করে এবং হৃদ্‌রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। পাশাপাশি অতিরিক্ত অ্যালকোহল পান বাড়িয়ে দেয় স্ট্রোকের ঝুঁকিও।

অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস: বেশি তেল মসলা দেওয়া খাবার খেলে কোলেস্টেরলের মাত্রা দ্রুত বৃদ্ধি পায়। অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় শাক-সব্জি না খেলে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ উপাদানের ভারসাম্য নষ্ট হয়। রক্তে স্নেহ পদার্থের মাত্রা বেড়ে গেলে তা ধমনীর ভিতর জমা হতে থাকে। এতে রক্তচাপ বাড়ার আশঙ্কা থাকে।