রাজধানীর কলাবাগানের তেঁতুলতলা মাঠে এবারের ঈদুল ফিতরের জামাতে অংশ নিয়েছেন হাজারো মুসল্লি। 

মঙ্গলবার সকাল ৮টায় তেঁতুলতলা মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। ঈদের জামাতকে কেন্দ্র করে মাঠে টানানো হয় সামিয়ানা। বাঁশ দিয়ে নির্মাণ করা হয় অবকাঠামো। সকাল থেকেই আসতে থাকেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। তাদের সঙ্গে আসে শিশুরাও। 

তেঁতুলতলা মাঠে কলাবাগান থানা ভবন নির্মাণ নিয়ে উত্তেজনার রেশ কাটতে এ মাঠে ঈদ জামাত আয়োজনের পরিকল্পনা নেন এলাকাবাসী। 

এলাকাবাসীর পক্ষে ওই ঈদের জামাতের আয়োজন করছে উত্তর ধানমন্ডি মসজিদ কমিটি। মাঠে নামাজ আদায় করতে পেরে এলাকার বাসিন্দারা খুশি।

ঈদ জামাত আয়োজনের সংশ্লিষ্ট একেএম কামরুজ্জামান বলেন, মাঠটি যে শিশুদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে, তাতেই আমরা অনেক খুশি। সবকিছুর পরে আমরা এ মাঠে ঈদের জামাত আদায় করতে পেরে খুশি।

মুসল্লিরা জানান, মাঠটি দখল মুক্ত হওয়ায় এলাকার সবাই খুশি। খুশিতে এবার রেকর্ডসংখ্যক মুসল্লিরা ঈদের জামাতে অংশগ্রহণ করেছেন এ মাঠে। এর আগে এই মাঠে এত মানুষ একসঙ্গে ঈদের জামাত আদায় করেননি।

রাজধানীর কলাবাগান এলাকার তেঁতুলতলা মাঠে পুলিশের জন্য থানা ভবন নির্মাণের কথা ছিল। তবে মাঠটি রক্ষার দাবিতে অনেক দিন ধরে আন্দোলন করে আসছিলেন স্থানীয়রা। এর মধ্যে গত ২৪ এপ্রিল মাঠটি রক্ষার দাবিতে আন্দোলনকারী সৈয়দা রত্না ফেসবুক লাইভ করার সময় কলাবাগান থানা পুলিশ তাকে ধরে নিয়ে যায়। 

এরপর তার ছেলেকেও আটক করা হয়। ১৩ ঘণ্টা থানায় আটকে রাখার পর ওইদিন মধ্যরাতে মুচলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। ২৮ এপ্রিল সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানান, কলাবাগানের তেঁতুলতলা মাঠে আর কোনো ভবন হবে না। মাঠ যেভাবে ছিল সেভাবেই থাকবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ পরামর্শ দিয়েছেন।