বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বরিশালে সভা ও মিলাদ মাহফিলে যাওয়ার সময় হামলার শিকার হয়েছেন বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এ হামলায় ছয়জন আহত হন। উপজেলা বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, সোমবার সকালে তাদের নেতাকর্মীদের ওপর এ হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগ।

সকাল ৮টা থেকে ৯টার মধ্যে গৌরনদী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় হামলার ঘটনাটি ঘটে। আহতরা হলেন গৌরনদী পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম ফকির, গৌরনদী পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি জামাল শরীফ, উপজেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মনির হোসেন, পৌর যুবদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক বুলবুল সরদার, সদস্য মাহাতাব সরদার ও চাঁদশী ইউনিয়ন ছাত্রদলের সম্পাদক সোহেল সরদার।

আহতদের মধ্যে শাহ আলমের হাত ভেঙে গেছে এবং জামাল শরীফ পায়ে আঘাত পেয়েছেন। তাদের বরিশালের শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের মধ্যে একজনকে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও তিনজনকে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

গৌরনদী পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম ফকির বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বরিশাল সদর (উত্তর) বিএনপির কর্মসূচিতে অংশ নিতে যাচ্ছিলেন তিনি। গৌরনদী বন্দরের বাসা থেকে বের হয়ে গৌরনদী বাসস্ট্যান্ডের লোকাল কাউন্টারে পৌঁছান। সকাল থেকে সেখানে ওত পেতে থাকা সরকারি গৌরনদী কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাতুল শরীফের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের ১০ থেকে ১৫ জন লাঠিসোঁটা, রড ও অস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়ে তাকে আহত করেন।

জামাল শরীফ অভিযোগ করে বলেন, বরিশালে আসার জন্য সকালে আশোকাঠি হেলিপ্যাড এলাকায় পৌঁছালে তার ওপর হামলা চালান রাতুল শরীফ ও তার অনুসারীরা। একই অভিযোগ করেন আহত উপজেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মনির হোসেন, পৌর যুবদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক বুলবুল সরদার, সদস্য মাহাতাব সরদার ও চাঁদশী ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সোহেল সরদার।

তবে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন গৌরনদী কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাতুল শরীফ। তিনি বলেন, হামলার ঘটনা সম্পর্কে তিনি কিছুই জানেন না।

গৌরনদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আফজাল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে থানায় কেউ লিখিত কোনো অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।