উচ্চ রক্তচাপ এখন সাধারণ সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিভিন্ন বয়সের মানুষ এখন এই রোগে আক্রান্ত হন। বিশেষজ্ঞদের মতে, রক্তচাপ বেড়ে গেলে শরীরে নানা রকম জটিলতা তৈরি হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়। যাদের রক্তচাপ অনেক বেশি তাদের নিয়মিত ওষুধের দ্বারা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকতে হয়।

অনেক সময়ে সব কিছুর পরেও রক্তচাপ কমানো মুশকিল হয়ে পড়ে। সেক্ষেত্রে দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় কিছু খাবার যোগ করা জরুরি।  অনেকের হয়তো জানা নেই, বিটরুট উচ্চ রক্তচাপ কমাতে বেশ উপকারী।

বিটরুটে উচ্চ মাত্রার খাদ্যতালিকাগত নাইট্রেট শরীর জৈবিকভাবে সক্রিয় নাইট্রাইট এবং নাইট্রিক অক্সাইডে রূপান্তরিত করে। মানবদেহে,নাইট্রেট অক্সাইড রক্তনালীগুলিকে শিথিল এবং প্রশস্ত করে তোলে। দ্য জার্নাল অফ নিউট্রিশন-এ প্রকাশিত এক গবেষণাপত্রে গবেষকরা জানিয়েছেন, অজৈব নাইট্রেট এবং বিটরুটের রসের পরিপূরক সিস্টোলিক রক্তচাপকে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করে। এছাড়াও বিটরুট খাওয়ার আরও অনেক উপকারিতা রয়েছে। যেমন-

১. বিটরুট হৃৎপিণ্ড সুস্থ রাখে
২. ক্যানসার প্রতিরোধ করে
৩. হজম উন্নত করে
৪. কোলেস্টেরল কমাতে ভূমিকা রাখে
৫. ডায়রিয়া নিরাময় করে
৬. মুখের ফোস্কা নিরাময় করে
৭.  চর্বি কমায়
৮. হাড় মজবুত করে।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে বিটের রস ছাড়াও পালং শাক, রসুন, মিষ্টি আলু জাতীয় সবজি খেলে উপকার পাওয়া যায়। এর পাশাপাশি নিয়মিত শারীরচর্চা করাও স্বাভাবিক। উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের অতিরিক্ত লবণ, জাঙ্ক ফুড এবং টিনজাত খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।