অতিবৃষ্টিতে উজানের ঢলে তলিয়ে গেছে সুনামগঞ্জের সব উপজেলা। প্রায় ২৯ লাখ মানুষ এখন বন্যার দুর্ভোগে রয়েছে। জেলার সঙ্গে দেশের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্নের পর এখন ১১ উপজেলার অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থাও ভেঙে পড়েছে। বিদ্যুৎও নেই৷

বৃহস্পতিবার বিকালে সুনামগঞ্জ সদর, ছাতক, দোয়ারাবাজার, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর ও শান্তিগঞ্জ উপজেলা পানিতে তলিয়ে যায়।

স্থানীয় সরকারের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে নতুন করে জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা, দিরাই, শাল্লা ও জগন্নাথপুর প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

ঘর তলিয়ে যাওয়ায় এসব এলাকার দুর্গত মানুষরা স্থানীয় স্কুল-কলেজে আশ্রয় নিচ্ছেন। তবে তারা ত্রাণ সহায়তা পাচ্ছেন না বলেও জানিয়েছেন।

জামালগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল আল আজাদ বলেন, 'আমার উপজেলা সদরসহ প্রতিটি গ্রামের বসতবাড়ি এখন পানির নিচে। মানুষ অসহায়। তাদেরকে আশ্রয় কেন্দ্রের পাশাপাশি খাদ্য, চিকিৎসা সহায়তা প্রয়োজন। সড়ক ও টেলিযোগাযোগ বিচ্ছিন্নতার কারণে আমরা অসহায় মানুষদের সহায়তা দিতে পারছি না।'

এদিকে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, 'সরকারি ত্রাণ বিতরণের পাশাপাশি সেনাবাহিনী ও প্রশাসন উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বন্যা মোকাবেলা করতে হবে।'