আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বর্তমান ও সাবেক সংসদ সদস্যের সমর্থকদের সংঘর্ষে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার পুলেরঘাট বাজার রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার বিকালে পুলেরঘাট বাজারে সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে। দুই গ্রুপের সংঘর্ষে সাংবাদিকসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন।

পাকুন্দিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সারোয়ার জাহান জানান, আওয়ামী লীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে পাকুন্দিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য সোহরাব উদ্দিনের গ্রুপটি পুলেরঘাট বাজারে সমাবেশ আহ্বান করে। 

একই সময়ে কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদী-পাকুন্দিয়া) আসনের সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ গ্রুপও একই স্থানে কর্মসূচি ঘোষণা করে। 

বৃহস্পতিবার বিকেলে দুই গ্রুপ মিছিল বের করলে সংঘর্ষ শুরু হয়। উভয় গ্রুপের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপসহ প্রায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী ধাওয়া, পাল্টা-ধাওয়া চলে। 

সংঘর্ষ চলাকালে কিশোরগঞ্জ-ভৈরব মহাসড়কের পুলেরঘাট বাজারের দুপাশে শতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে। বন্ধ হয়ে যায় পুলেরঘাট বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

খবর পেয়ে পাকুন্দিয়া ছাড়াও কিশোরগঞ্জ সদর ও কটিয়াদী থানা থেকেও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

আহতদের মধ্যে স্থানীয়ভাবে ১২ জনের নাম পাওয়া গেছে। তারা হলেন চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের জেলা প্রতিনিধি খায়রুল আলম ফয়সাল (৩৩), পাকুন্দিয়া উপজেলার কলাদিয়া গ্রামের মাছুম (৩৫), জুনিয়াইল গ্রামের হারিছ (৩০), পাঁচলগোটা গ্রামের কবির (৩৫), পাকুন্দিয়া উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি নাজমুল আলম দেওয়ান (৪০), বিষুহাটি গ্রামের আরিফ (৩০), আদর্শপাড়া গ্রামের খায়রুল (৩৫), মাইজহাটি গ্রামের আরিফুল ইসলাম স্বপন (৩০), চণ্ডিপাশা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মতিউর রহমান (৬৫), ষাইটকাহন গ্রামের মুকুল (৩৫), পাকুন্দিয়া সদরের টিপু (৪০) ও রিপন (৩৮)।

আহত সাংবাদিক খায়রুল আলম ফয়সাল আরিফুল ইসলাম স্বপনকে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অন্যান্যদের স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। আহত কয়েকজনকে পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিলেও থেমে থেমে সংঘর্ষ চলছে বলে স্থানীয়রা সমকালকে জানিয়েছেন।