রাঙামাটি শহর এলাকায় পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের ডাকা ৩২ ঘণ্টার হরতাল স্থগিত করা হয়েছে। আগামীকাল বুধবার রাঙামাটিতে অনুষ্ঠিতব্য পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি নিষ্পত্তি কমিশনের বৈঠক স্থগিত করায় এই হরতাল স্থগিত করা হয়েছে।  

আজ মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে নাগরিক পরিষদের সভা শেষে শহরের বনরূপায় এক সংবাদ সম্মেলনে এই হরতাল স্থগিতের ঘোষণা দেন বাঙালি ভিত্তিক পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান কাজী মুজিবুর রহমান। 

এ সময় তিনি বলেন, ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের বৈঠক স্থগিত করায় আমাদের ঘোষিত হরতাল কর্মসূচি আজ বিকেল ৩টা থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তবে এ সময়ের মধ্যে গোপনে যদি কোনো বৈঠক করা হয় তবে আমরা আবারও কঠোর কর্মসূচি দেব।

এর আগে রাঙামাটি শহরে আজ থেকে শুরু হওয়া ৩২ ঘণ্টার হরতালের কারণে সকাল থেকে সড়ক ও নৌপথে অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার কোনো যানবাহন চলাচল করেনি। শহরের অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ ছিল। বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত লোকজনদের পায়ে হেঁটে কর্মস্থলে যেতে দেখা গেছে। সকাল থেকে শহরের ভেদভেদী, কলেজ গেইট, বনরূপা, কাঁঠালতলী, পৌরসভা, পুরাতন বাসস্ট্যান্ড, রিজার্ভ বাজার ও তবলছড়ি এলাকায় হরতালের সমর্থনে পিকেটিং করছেন হরতাল সমর্থনকারীরা। 

তবে হরতালের কারণে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া শহরের বিভিন্ন স্থানে অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর টহল জোরদার করা হয়। তবে হরতালে কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি নিষ্পত্তি কমিশনের সচিব মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিনের স্বাক্ষরিত এক আদেশে বলা হয়, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমার (সন্তু লারমা) স্বাক্ষরিত স্মারকমূলে মঙ্গলবার ও বুধবার পার্বত্য নাগরিক পরিষদের হরতাল আহ্বানের কারণে কমিশনের পূর্ব নির্ধারিত বুধবারের সভা স্থগিত করার অনুরোধ ও কমিশনের অন্যান্য সদস্যদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে সভা স্থগিত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের বৈঠক প্রতিহতসহ ৭ দফা দাবিতে মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে বুধবার দুপুর ২টা পর্যন্ত রাঙামাটি শহরে হরতালের ডাক দেয় পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ।