এবার সুযোগ মিলবে তো লেগিদের

প্রকাশ: ০৫ অক্টোবর ২০১৯       প্রিন্ট সংস্করণ     

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বিদেশি কোচরা এসেই লেগ স্পিনারের সন্ধান করেন। চান্দিকা হাথুরুসিংহে তো নেট থেকেই তুলে এনেছিলেন জুবায়ের হোসেন লিখনকে। রাসেল ডমিঙ্গোরা দায়িত্ব নেওয়ার পরই লেগ স্পিনারদের দেখতে চেয়েছেন। আফগানিস্তানের কাছে টেস্ট হারের পর লেগ স্পিনারের জন্য দাবি জোরালো করেছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। একাধিক সংবাদ সম্মেলনে লেগ স্পিনারের জন্য আক্ষেপ করেছেন তিনি। এই শূন্যতা কাটিয়ে উঠতেই ইমার্জিং দলের ক্রিকেটার আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে নেওয়া হয়েছিল ত্রিদেশীয় টি২০ সিরিজে। টি২০ অভিষেকটা ভালোও হয় বিপ্লবের। তার বোলিং এবং খেলার মেজাজ দেখে খুশি টিম ম্যানেজমেন্ট।

অথচ এই লেগ স্পিনাররা জানেন না, জাতীয় লীগে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবেন কি-না। বিসিবির নির্বাচকদের কাছেও এর উত্তর নেই। ঢাকার ক্লাব ক্রিকেটে কোনো কালেই লেগ স্পিনারদের কদর ছিল না। বিভাগীয় দলের কোচরাও লেগ স্পিনারদের ওপর কোনো দিনই সেভাবে আস্থা রাখেননি। জাতীয় লীগ বিসিবির টাকায় হলেও নির্বাচকরা কোচদের ওপর কোনো প্রভাব খাটাতে পারেন না। তাই কোচদের অনুরোধ করাই নির্বাচকদের চেষ্টার দৌড়।

দেশে লেগ স্পিনার আছেই হাতেগোনা কয়েকজন- আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, নাজমুল আবেদীন আফ্রিদি, জুবায়ের হোসেন লিখন, রিশাদ হোসেন ও তানভীর হায়দার। তাদের মধ্যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারের স্বীকৃতি আছে তানভীর ও লিখনের। ২৭ বছর বয়সী তানভীর লম্বা সময় জাতীয় পর্যায়ে ক্রিকেট খেলেও নিজেকে আন্তর্জাতিক মানে নিয়ে যেতে পেরেছেন কি-না সেটা বড় প্রশ্ন। তার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার থেমে আছে দুটি ওয়ানডে ম্যাচে। অথচ প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৬৯ ম্যাচে ১১৪টি উইকেট আছে এ লেগ স্পিনারের।

টেস্ট দল দূরে থাক 'এ' দলের খেলাগুলোতেও খুব একটা সুযোগ দেওয়া হয় না তাকে। ১০ অক্টোবর থেকে অনুষ্ঠেয় ২১তম জাতীয় লীগকে গুরুত্বের সঙ্গে নিতে চান রংপুরের এ ক্রিকেটার,' আমার স্বপ্ন টেস্ট খেলা। এই মৌসুমে আমার লক্ষ্য হলো ভালো কিছু করে টেস্ট দলের ঢোকার চেষ্টা করা। উপমহাদেশে টেস্ট অভিষেক হলে ভালো করতে পারব।' জাতীয় লীগে তানভিরের ম্যাচ খেলা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। রংপুর বিভাগে নিয়মিতই ম্যাচ খেলার সুযোগ পান তিনি। এবারের লীগে একটু বেশি ওভার বোলিং করার সুযোগ পেলে খুশি হবেন তিনি।

হাথুরুসিংহের আবিস্কার লিখনকে নিয়েও খুব একটা ভাবে না বোর্ড। অভিষেকের এক বছরের মাথায় জাতীয় দল থেকে ছিটকে যাওয়া এই স্পিনার গত পাঁচ বছর ধরেই ম্যাচ খেলার আকুতি জানাচ্ছেন। ঢাকা প্রিমিয়ার লীগে নিয়মিত খেলার সুযোগ পান না। জাতীয় লীগের কোচরাও খেলান না জামালপুরের এ লেগ স্পিনারকে। এ বছর ঢাকা বিভাগীয় দলের কোচিং স্টাফে পরিবর্তন এসেছে। জুবায়ের আশা, জাতীয় লীগে এবার নিয়মিত ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবেন তিনি। আর সুযোগ পেলে নিজেকে ভালোভাবে তৈরি করার একটা প্রতিজ্ঞা নিয়েছেন, 'এবার অনেক পরিশ্রম করেছি। আমি চাই ম্যাচ খেলতে। ম্যাচ খেলার সুযোগ পেলে অবশ্যই কাজে লাগাব।'

বাকি তিন লেগ স্পিনার মধ্যে রিশাদ (ব্যাকআপ) অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে শ্রীলংকা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিপক্ষে দেশে চারদিনের ক্রিকেটের সিরিজ খেলবেন। এ কারণে তার জাতীয় লীগে খেলা হবে না বলে জানান নির্বাচক হাবিবুল বাশার। বিপ্লব খেলবেন ঢাকার দলে। বাশার আশাবাদী, বিকেএসপির এই তরুণ লেগ স্পিনার নিয়মিত ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবেন। লিখনের মতো আফ্রিদির নিয়মিত ম্যাচ পাওয়া নিয়ে চিন্তায় আছেন নির্বাচকরা। বাশার গতকাল সমকালকে বলেন, 'আমরা কোচদেরঅনুরোধ করেছি লেগ স্পিনারদের নিয়মিত খেলাতে। দেশের কথা ভেবে কোচরা আমাদের একটু সহযোগিতা করলে খুশি হবো।' জাতীয় লীগ বিসিবির টাকা এবং কোচিং স্টাফ দিয়ে হলেও বিভাগের কর্মকর্তাদের চাপের কাছেই যেন হেরে যায় সবাই। তাই বিসিবি নির্বাচকদের কণ্ঠেও থাকে অসহায়ত্বের আকুতি।

বিষয় : খেলা ক্রিকেট বাংলাদেশ জাতীয় লিগ