গ্রাহকের বন্ধকি স্বর্ণ জালিয়াতি করে আত্মসাতের অভিযোগে সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ ওরফে মহিসহ নয় কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মঙ্গলবার দুদকের উপপরিচালক মো. ইব্রাহিম বাদী হয়ে কমিশনের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১-এ মামলাটি করেন।

দুদক সূত্র জানায়, মামলার পরই রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে পাঁচ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা হলেন- সমবায় ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক আবদুল আলিম, সহকারী মহাব্যবস্থাপক (হিসাব) হেদায়েত কবীর, প্রিন্সিপাল অফিসার মো. ওমর ফারুক, সিনিয়র অফিসার (ক্যাশ) নুর মোহাম্মদ ও ব্যাংকের সাবেক প্রিন্সিপাল অফিসার মো. মাহাবুবুল হক। মামলার অপর তিন আসামি হলেন- ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (স্বর্ণ বন্ধকি ঋণ বিভাগ) মো. আশফাকুজ্জামান, সহকারী অফিসার আবদুর রহিম ও নাহিদা আক্তার।

এজাহারে বলা হয়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে সমবায় ব্যাংকে জমা হওয়া স্বর্ণ অসাধুভাবে প্রতারণা, জাল-জালিয়াতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে অসৎ অভিপ্রায়ে ষড়যন্ত্র করে আত্মসাৎ করেন। ১১ কোটি ৩৯ লাখ ৮৮ হাজার ৬৮৬ টাকা মূল্যের স্বর্ণ আত্মসাৎ করা হয়। এ ক্ষেত্রে বিদ্যমান আইন অনুসরণ না করে ভুয়া ও জাল কাগজপত্র তৈরি করে নিজে ও অপরকে লাভবান করার উদ্দেশ্যে প্রকৃত গ্রাহককে তাদের স্বর্ণ না দিয়ে আত্মসাৎ করা হয়। আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি ৪০৯/৪২০/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/১০৯/১২০বিধি ও ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় মামলাটি করা হয়েছে।