সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, দুবাইতে ভালো চাকরির কথা বলে শত শত মানুষকে বিভিন্ন দেশে পাচার করেছেন মো. তুহিন সিদ্দিক অমি (৩৩) ও তার সহযোগীরা। এভাবে তারা হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা।

মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন সংস্থাটির ঢাকা মেট্রোর অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ ওমর ফারুক।

এর আগে শনিবার রাজধানীর দক্ষিণখান থানায় অমি ও তার সহযোগীদের মানবপাচার চক্রের বিরুদ্ধে একটি মামলা করা হয়। পরে মামলাটি পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ মামলায় সিআইডি এখন পর্যন্ত ৯ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। অচিরেই তাদের আইনের আওতায় আনা হবে বলেও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

গ্রেপ্তাররা হলেন- মো.জসিম উদ্দিন (৩৬), মো. সালাউদ্দিন (৩৫), মো. মুসা (২৬), মো. রাকিবুল ইসলাম রানা (৩৩), মো. গোলাপ হোসেন বুলবুল (৩৪), মো. জাকির হোসেন (৩৪), মো. নাজমুল (২৫), মো. আলম (৩৫), ও শাহজাহান সরকার (৪৩)।

অমির সহযোগীদের গ্রেপ্তারের সময় অমির ব্যবহার করা চারটি বিলাসবহুল গাড়ি, ২২টি হার্ডডিস্ক, জমির দলিল, ৩৯৫টি পাসপোর্টসহ বেশকিছু মালামাল জব্দ করা হয়েছে।

এর আগে অমির দুই সহযোগী বাছির ও মশিউর মিয়াকে বেআইনিভাবে পাসপোর্ট রাখার মামলায় জামিন দিয়েছেন আদালত। গত শনিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ধীমান চন্দ্র মণ্ডলের আদালত তাদেরকে জামিনের এই আদেশ দেন।

বিষয় : মানবপাচার টাকা হাতিয়ে নেওয়া তুহিন সিদ্দিক অমি

মন্তব্য করুন