নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজ কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে হতাহতের ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা মামলার তদন্তভার পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগে (সিআইডি) হস্তান্তরের নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পুলিশ সদর দপ্তর থেকে এ আদেশ এসেছে বলে সমকালকে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম।

পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম সমকালকে বলেন, ‘মামলাটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও স্পর্শকাতর। পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশে থানা-পুলিশের কাছ থেকে তদন্তভার সিআইডিকে হস্তান্তরের নির্দেশনা এসেছে। নির্দেশনা অনুযায়ী মামলাটি সিআইডিতে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। মামলার নথি, আলামতসহ সবকিছু বর্তমান তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির তদন্ত কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করবেন।’

মামলা হস্তান্তর ও তদন্তের বিষয়ে জানতে চাইলে সিআইডি নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ের বিশেষ পুলিশ সুপার দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশে মামলাটি সিআইডিকে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আগামী শনিবার সিআইডির পক্ষ থেকে তদন্তভার গ্রহণ করা হবে।’

গত ৮ জুলাই বিকেলে রূপগঞ্জে হাসেম ফুড কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ৫২ শ্রমিক নিহত হন। ওই ঘটনা তদন্তে জেলা প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর পৃথক তিনটি তদন্ত কমিটি গঠন করে।

অগ্নিকান্ডে হতাহতের ঘটনায় রূপগঞ্জের ভুলতা ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক নাজিম উদ্দিন বাদী হয়ে প্রতিষ্ঠানের মালিক ও তার ৪ ছেলেসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে রূপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। 

মামলার প্রেক্ষিতে প্রতিষ্ঠানের মালিক আবুল হাশেমসহ ৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

পরে তাদের চার দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গত বুধবার আদালতে হাজির করা হলে কারখানার মালিক আবুল হাসেমসহ ছয়জনকে কারাগারে পাঠানো নির্দেশ দেন বিচারক। জামিন পান আবুল হাসেমের ছোট দুই ছেলে।