সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আসা উড়ো খবরের সত্যতা যাচাই না করে উত্তেজক পরিস্থিতি সৃষ্টিতে বিরত থাকতে দেশবাসীকে অনুরোধ জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। 

তিনি বলেন, ‘ফেসবুক মাধ্যমে নানা পোস্টের সত্যতা যাচাই না করে উত্তেজনা বা খামাখা উস্কানিতে কেউ পথ ভুলবেন না। রংপুরের মতো কাণ্ড ঘটিয়ে বসবেন না।’।

র‍্যাবের সব ব্যাটালিয়ন ও ক্যাম্প পর্যায়ে তথ্য প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার বিস্তৃত করার লক্ষ্যে ‘র‍্যাবের প্রযুক্তিগত আধুনিকায়ন’ শীর্ষক কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। 

এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন, বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (প্রশাসন ও ইন্সপেকশন) মইনুর রহমান চৌধুরী, র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল-মামুন।

কুমিল্লার পূজামণ্ডপে হামলার ঘটনা নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘হামলাকারীদের আমরা খুব দ্রুত ধরে ফেলতে পারব। তারা স্থান পরিবর্তন করে এদিক সেদিক যাচ্ছে। ‘

তিনি বলেন, ‘অনেক দেশে অনেক সময় অনেক কিছু ঘটে যায়। কিন্তু আমরা বলি, আমরা আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অটুট রাখব। আমরা যখন সে পথে অনেকটা এগিয়ে গেছি, তখন সেই সম্প্রীতি বিনষ্ট করার নানা তৎপরতা চলছে। ফেসবুকে অপপ্রচারের মাধ্যমে কোন স্বার্থান্বেষী মহল অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায়, তা আমরা দেখছি।’ 

সম্প্রতি নোয়াখালীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির, মণ্ডপে হামলার ঘটনায় একজনকে পিটিয়ে মারার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসেছে। 

২০১৬ সালে রাজধানীর পল্লবীতে এক ব্যক্তিকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যার ভিডিওকে এখন নোয়াখালীর ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে অনুষ্ঠানে দাবি করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। 

এমন ভিডিও প্রচারকে ‘অপপ্রচার, অমানবিক ও ন্যক্কারজনক’ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি ওই ভিডিও প্রচারকারীদের হুশিয়ার করে দেন।

দেশের বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে সহিংসতার বিষয়টি আলোচনা এলে সরকারপ্রধান এ নির্দেশনা দেন বলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান।

কুমিল্লা থেকে শুরুর পর গত পাঁচ দিনে সারাদেশে হিন্দুদের উপর হামলার ঘটনায় সারাদেশে ৭১টি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় আটক করা হয়েছে ৪৫০ জনকে।

গুজব ও বিভ্রান্তি ছড়িয়ে সহিংসতা ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও জানিয়েছে পুলিশ।

সোমবার রাতে পুলিশ সদর দপ্তর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে পূজামণ্ডপকেন্দ্রিক ‘অপ্রীতিকর ঘটনায়’ এ পর্যন্ত ৭১টি মামলা রুজু হয়েছে। আরও কিছু মামলা রুজু প্রক্রিয়াধীন।

এসব হামলা-ভাংচুরে জড়িত সন্দেহে ৪৫০ জনকে আটক করা হয়েছে জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আটকের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। সব অপরাধীদের গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানানো হয়।