রাজবাড়ীতে পদ্মা নদী থেকে পরপর দুই দিনে দুই নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সদর উপজেলার গোদারবাজার এলাকায় পদ্মা থেকে অজ্ঞাত এক নারীর লাশ উদ্ধার করে দৌলতদিয়া নৌপুলিশ। আগের দিন সোমবার গোদারবাজার থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে উড়াকান্দা এলাকায় আরও এক নারীর গলিত লাশ পাওয়া যায়। পরপর দুটি লাশ উদ্ধারের ঘটনায় জনমনে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন। দুই ঘটনায় যোগসূত্র আছে কিনা, লাশগুলো কোথা থেকে আসছে- সেই প্রশ্ন উঠেছে। পুলিশ বলছে, লাশগুলো উজান থেকে ভেসে আসতে পারে।

এলাকাবাসী ও নৌপুলিশ সূত্র জানায়, মঙ্গলবার বিকেলে রাজবাড়ী শহরতলীর মিজানপুর ইউনিয়নের গোদারবাজারে পদ্মা নদীতে একটি লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। সন্ধ্যায় নৌপুলিশ গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে।

দৌলতদিয়া নৌপুলিশের এসআই শাজাহান আলী জানান, লাশটি অনেকটাই পচে গেছে। মাথার খুলি বেরিয়ে গেছে। লাশটি একজন নারীর এবং বয়স আনুমানিক ২৫ বছর। পরনে কোনো পোশাক ছিল না। তবে বুকে একটি কাপড় ও রশি দিয়ে বাঁধা ছিল। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে। সোমবার উদ্ধারকৃত লাশের সঙ্গে এই লাশের যোগসূত্র আছে বলে মনে হয় না।

এ বিষয়ে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার এমএম শাকিলুজ্জামান সমকালকে বলেন, তদন্ত না করে কিছুই বলা যাচ্ছে না। তবে এ লাশ আমাদের জেলার নয়, এটা নিশ্চিত। সেটা হলে আমরা জানতাম। লাশ দুটি উজান থেকে ভেসে এসেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ভারতীয় কারও লাশও হতে পারে। তিনি বলেন, সীমান্তবর্তী এলাকায় মানুষ অনেকভাবেই মারা যায়। বর্ষাকালে চোরাচালানের বিভিন্ন পণ্য আনতে গিয়েও অনেকের মৃত্যু হয়। নদীতে প্রচণ্ড স্রোতে লাশগুলো এদিকে ভেসে আসতে পারে। নৌপুলিশ বিষয়টি তদন্ত করবে। আমরাও বিষয়টি দেখছি।