ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯

আফগানিস্তান

ওডিআই র‌্যাংকিং ১০ম

ফিল সিমন্স

ফিল সিমন্স

ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ১৪৩ ওয়ানডে খেলে সাড়ে তিন হাজারের ওপরে রান এবং ৮৬ উইকেট নিয়েছেন..

বিশ্বকাপ

প্রথম বিশ্বকাপ: ২০১৫

বিশ্বকাপ জয়ী: ০০

বিশ্বকাপ রানারআপ: ০০

ওডিআই

প্রথম ওডিআই: ২০০৯ সালের ১৯ এপ্রিল

মোট ওডিআই: ১১৩

ওডিআই জয়ী: ৫৮

আফগানিস্তানের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা ক্রিকেট ও ফুটবল। ১৮৮০ সাল নাগাদ আফগানরা ক্রিকেট শুরু করে। তবে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তারা সেভাবে এগোতে পারেনি। ১৯৯৫ সালে এসে তাদের ক্রিকেট ফেডারেশন প্রতিষ্ঠিত হয়। জাতীয় দল গঠন করে ২০০১ সালে আইসিসির সহযোগী সদস্যপদ লাভ করে আফগানিস্তান।

মজার ব্যাপার হলো, আফগান তালেবানরা অন্য সব খেলার পাশাপাশি আফগানিস্তানে ক্রিকেটও নিষিদ্ধ করে। তবে পরে তারা শুধু ক্রিকেট খেলার অনুমোদন দেয়। ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার জন্য আফগানিস্তান জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের পাকিস্তান তাদের দেশে আমন্ত্রণ জানায়।

আফগানিস্তান ২০০৯ সালে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে খেলে। ২০১১ বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব তারা উৎরাতে পারেনি। তবে দারুণ ক্রিকেটে খেলে ওয়ানডে মর্যাদা পায়। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পা দিয়েই ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলে আফগানিস্তান ক্রিকেটপ্রিয় দর্শকের মন জয় করে নেয়। ২০১৫ বিশ্বকাপে অংশ নেয় তারা। আর আয়ার‌ল্যান্ড-জিম্বাবুয়েকে পেছনে ফেলে ২০১৯ বিশ্বকাপের মূল পর্বে জায়গা করে নিয়েছে আফগানরা। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় আফগানিস্তান।