সয়াবিনে বিষাক্ত কেমিক্যাল মিশিয়ে নারিকেল তেল বানান তারা

প্রকাশ: ২২ আগস্ট ২০১৯     আপডেট: ২২ আগস্ট ২০১৯      

শরীয়তপুর প্রতিনিধি

অভিযানে আটকদের দু’জন— সমকাল

নিম্নমানের সয়াবিন তেলের সঙ্গে চীন ও ভারত থেকে আনা বিষাক্ত কেমিক্যাল মিশিয়ে তৈরি করা হচ্ছে নারিকেল তেল। পরে নামিদামি বিভিন্ন ব্রান্ডের নকল বোতলে ভরে শরীয়তপুরসহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে। 

এমন একটি নারিকেল তেল উৎপাদনকারী কারখানার সন্ধান পেয়ে জেলার সদর উপজেলার আঙ্গারিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (টিআই) মিন্টু মণ্ডল বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে সেখানে অভিযান চালান। এ সময় নকল তেল কারখানার মালিক, দুই কর্মচারী ও বাড়ির মালিকের ছেলেকে আটক করা হয়। একই সঙ্গে নকল তেল তৈরির কাঁচামাল, কেমিক্যাল ও নকল বোতল জব্দ করা হয়।

আটকরা হলেন– কারখানার মালিক শরীয়তপুর সদর উপজেলার দেওভোগ গ্রামের বাবুল দাসের ছেলে সুজন দাস (২৫), বাড়ির মালিক কাশিপুর গ্রামের ইলিয়াস হাওলাদারের ছেলে বাবুল হাওলাদার (২৫), তেল তৈরির কারিগর ধানুকা গ্রামের আলী আহম্মদ মাঝির ছেলে মিলন মাঝি (২৮) ও আটং গ্রমের প্রয়াত মদন বৌদ্ধর ছেলে সজীব বৌদ্ধ (২০)।

পুলিশ জানায়, আটকদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে। কারখানার অপর মালিক সুমন পালিয়ে গেছেন। এর আগেও তারা সদর উপজেলার দেওভোগ গ্রামে নকল নারিকেল তেল তৈরি করতেন। সেই সময় র‌্যাবের অভিযানে তারা গ্রেফতার হয়ে অনেকদিন কারাগারে ছিলেন। অভিযানে তেল তৈরির কাঁচামাল, তেলভর্তি ২টি ড্রাম, প্যারাস্যুট তেলের নকল করে তৈরি প্যারামিট তেলের এক হাজার ২০০ খালি বোতল, বিদেশি কেমিক্যাল, কলম্বো ব্রান্ড তেলের বিজ্ঞাপন স্টিকার ও বেশকিছু তেল জব্দ করা হয়।

আঙ্গারিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (টিআই) মিন্টু মণ্ডল বলেন, 'গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিএসটিআই অনুমোদনবিহীন নকল নারিকেল তেল তৈরির কারখানার সন্ধান পাই। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অনুমতি স্বাপেক্ষে এটিএসআই আকরামুজ্জামান, সালাউদ্দিন, এএসআই জামাল, কনস্টেবল গফফারকে নিয়ে আঙ্গারিয়া বাজারের নদীর পাড় এলাকায় জামাল মুন্সীর মেইল সংলগ্ন ইলিয়াস হাওলাদারের বাড়িতে অভিযান চালিয়েছি। আটকদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।'