মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র হাজী আব্দুস সালামের বাসায় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে পৌরসভার রামগোপালপুর এলাকার এ ঘটনায় চার পৌর কাউন্সিলর ও মেয়রের স্ত্রী-সন্তানসহ অন্তত ১৩ জন দগ্ধ হয়েছেন।

মুন্সীগঞ্জের গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি মোজাম্মেল হক জানান, কিভাবে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মেয়রের বাসার তৃতীয় তলার একটি কক্ষে এই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। বিস্ফোরণে ভবনের একাধিক কক্ষের দড়জা তছনছ হয়ে গেছে। ঘটনার সময় বিস্ফোরিত কক্ষের ভেতরে ৬ জন কাউন্সিলর নিয়ে মেয়র হাজী আব্দুস সালাম বৈঠক করছিলেন। মেয়র অক্ষত রয়েছেন।

বিস্ফোরণে দগ্ধ চার কাউন্সিলর হলেন- মো. সোহেল রানা, মো. আওলাদ, দীন ইসলাম ও রহিম বাদশা (প্যানেল মেয়র)। দগ্ধ অন্যরা হলেন- মেয়রের স্ত্রী কানন বেগম, মো. মোশারফ, মনির হোসেন, শ্যামল দাস, পান্না, কালু, মো. ইদ্রিস আলী, মঈনউদ্দিন ও মো. তাজুল। দগ্ধদের ১২ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্যরা মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আওয়ামী লীগ কর্মী মনিরুজ্জামান রিপন জানান, একটি কাজে মেয়রের বাসায় ঢুকছিলেন তিনি। এ সময় হঠাৎ বিকট শব্দে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত নির্বাচনে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী কামরুল ইসলাম জাহাঙ্গির বলেন, বিকট শব্দে বিস্ফোরণের খবর পেয়ে মেয়রের বাসভবনে এসেছেন। এসে দেখেন, ঘটনাস্থলে ভয়াবহ অবস্থা।

মেয়র হাজী আব্দুস সালামের সমর্থকদের দাবি, নাশকতার জন্য মেয়রের বাড়িতে একটি পক্ষ এ বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। তবে অন্য একটি পক্ষ দাবি করছে, মেয়রের বাসভবনে নির্বাচনের সময় সংরক্ষিত বিস্ফোরক থেকে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।

আহত প্যানেল মেয়র রহিম বাদশা বলেন, পৌরসভার একটি কাজের ব্যাপারে ৪ জন কাউন্সিলরসহ আমরা কয়েকজন মেয়রের বাসায় আলোচনা করছিলাম। হঠাৎ কিছু একটা বিস্ফোরণ ঘটে। কি থেকে এমন বিস্ফোরণ ঘটেছে তা এখনও বলতে পারছি না।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক শৈবাল বসাক বলেন, 'একজন ছাড়া সকলকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত সকলেরই বার্ন ইনজুরি। ১৩ জনের মধ্যে মেয়রপত্নী কাননসহ দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।'

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মো. কামরুজ্জামান বলেন, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে আসলেও কী কারণে এই বিস্ফোরণ তা এখনও বলতে পারছি না। সিআইডিকে তলব করা হয়েছে। তারা আসার পরে হয়তো কিছু বলা যাবে।

মন্তব্য করুন