মাদারীপুরের কালকিনিতে পূর্ব শত্রুতার জেরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে মিরাজ খান নামে এক যুবকের পা কেটে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হয়েছে। এ সময় এক যুবলীগ নেতাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়। এ ঘটনায় আরও কয়েকজন গুরুতর আহত হন। থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বৃহস্পতিবার সকালে কালকিনি উপজেলার কালাই সরদারের চর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত মিরাজ কালাই সরদারের চর গ্রামের বাসিন্দা।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার পূর্ব এনায়েতনগর ইউপি যুবলীগের সভাপতি তাইজুল ইসলাম সাজ্জাতের সঙ্গে বৈরিতা চলছে মিরাজের। এর জেরে বৃহস্পতিবার সাজ্জাতের সমর্থকদের সঙ্গে মিরাজের সহযোগীদের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে উভয় পক্ষই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় সাজ্জাতকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে মিরাজের লোকজন। অন্যদিকে সাজ্জাতের লোকজন মিরাজকে কুপিয়ে বাম পা বিছিন্ন করে ফেলে রাখে। পরে স্থানীয়রা মিরাজকে কালকিনি হাসপাতালে নিলে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সাজ্জাতকেও ঢাকায় পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংঘর্ষের খবর পেয়ে কালকিনি থানা পুলিশ পূর্ব এনায়েতনগর এলাকার একটি ভিটা থেকে মিরাজের বিছিন্ন পা উদ্ধার করে। সাজ্জাতের বাবা কাশেম তালুকদার বলেন, 'আমার ছেলে মারামারির সময় ঘটনাস্থলেই ছিল না। তাকে অন্য জায়গা থেকে ধরে নিয়ে গিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। সে এখন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছে।' মিরাজের চাচা কবির খান বলেন, 'বিনা কারণে আমার ভাতিজা মিরাজের পা কেটে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে সাজ্জাতের লোকজন। আমরা হামলাকারীদের বিচার চাই।'

কালকিনি থানার ওসি ইসতিয়াক আসফাক রাসেল বলেন, পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।