কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার হাওরে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ হওয়া দুই পর্যটকের মধ্যে রনি (২২) নামে এক পর্যটকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে নিকলী উপজেলার সিংপুর ইউনিয়নের ঘোড়াদীঘা গ্রাম সংলগ্ন ঘোড়াউত্রা নদীরপাড়ের হাওরে উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

রনি কুমিল্লা জেলার লাকসাম উপজেলার কোয়ালবাজার গ্রামের জসিমের ছেলে। তিনি পিকআপ চালক ছিলেন। তিনি ঢাকার পূর্ব রসুলপুর কামরাঙ্গীরচর এলাকায় থেকে পিকআপ চালাতেন।

এছাড়া নিখোঁজ অপর পর্যটক মো. আলমগীরের (২০) সন্ধানে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আলমগীর গাইবান্ধা জেলার সদর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের মো. সাইদুরের ছেলে। তিনিও একজন পিকআপ চালক। তিনি ঢাকার গেণ্ডারিয়া এলাকায় থেকে পিকআপ চালান।

শুক্রবার বিকেলে নিকলী উপজেলার সিংপুর ইউনিয়নের ঘোড়াদীঘা গ্রাম সংলগ্ন ঘোড়াউত্রা নদীরপাড়ে কেওড়া গাছতলায় গোসল করতে গিয়ে তারা নিখোঁজ হন।

নিকলী থানার ওসি মো. শামছুল আলম সিদ্দিকী জানান, ঢাকা থেকে দুইটি পর্যটক টিম নিকলী আসে। এর মধ্যে একটি টিমে ২৫/২৬ জন এবং অপর টিমে৩০/৩৫ জন পর্যটক ছিলেন। শুক্রবার বিকাল পৌনে ৪টার দিকে নিকলী উপজেলার সিংপুর ইউনিয়নের ঘোড়াদীঘা গ্রাম সংলগ্ন ঘোড়াউত্রা নদীরপাড়ে কেওড়া গাছতলায় তারা গোসল করতে নামেন। এ সময় আলমগীর ও রনি পানিতে ডুবে নিখোঁজ হন। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করে।

তিনি বলেন, উদ্ধার অভিযানের এক পর্যায়ে শনিবার বেলা সোয়া ১১টা ২০মিনিটে নিখোঁজ দুই পর্যটকের মধ্যে রনির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এছাড়া নিখোঁজ অপর পর্যটকের সন্ধানে উদ্ধার অভিযান চলছে।