মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে ডু্বে যাওয়া ফেরি আমানত শাহ ১৩ দিনের মাথায় বাগে ফিরেছে। ফেরিটি সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ৮৫ শতাংশ উদ্ধার হয়েছে। চট্টগ্রাম থেকে আসা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান জেনুইন এন্টারপ্রাইজ এ উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করছে।

সোমবার সকাল ১০টার দিকে পাঁচটি উইন্স বার্জ দিয়ে ফেরিটি তোলার মূল কাজ শুরু করেন জেনুইনের উদ্ধারকারীরা। এরপর সন্ধ্যায় জানানো হয়, অর্ধডুবন্ত ফেরিটির প্রায় ৮৫ শতাংশ ক্রেন দিয়ে টেনে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

জেনুইনের ম্যানেজার অজয় দেবনাথ জানান, জেনুইনের ডিবি মেরিন স্যালভেজ-১, ডিবি মেরিন স্যালভেজ-২, ডিবি মোহনা-১, ডিবি মোহাম্মদ-১ ও ডিবি মোহাম্মদ-২ নামে মোট পাঁচটি উইন্স বার্জ এই ফেরি উদ্ধার অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। সকাল থেকে ফেরি উদ্ধারে তাদের ৫০ জন কর্মী কাজ করছেন। মঙ্গলবারের মধ্যে ফেরিটি তুলে সোজা করে ভাসিয়ে দেওয়া সম্ভব হবে বলেও তিনি জানান।

সোমবার উদ্ধার কাজ দেখতে আসেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) পরিচালক (নৌ-সংরক্ষণ পরিচালনা) শাহ জামান  ও নৗ বাহিনীর কমান্ড মো. ফয়জুল ইসলাম। তিনি জানান, কয়েক দিন ধরে জেনুইনের লোকজন উদ্ধার কাজ করছে। এরমধ্যে সোমবার সকাল থেকে ফেরি উদ্ধারের মূল কাজ শুরু হয়। দুপুরের মধ্যেই ফেরিটির অর্ধেকের বেশি পানিতে ভেসে ওঠে। আশা করা যায়, মঙ্গলবারের মধ্যে ফেরিটি পুরোপুরি ভাসানো যাবে।

গত ২৭ অক্টোবর পন্যবাহী ট্রাক ও মোটসাইকেল নিয়ে পাটুরিয়ার ৫নং ঘাটে ডুবে যায় রো রো ফেরি আমানত শাহ। এরপর উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা ও রুস্তম ৩০ অক্টোবরের মধ্যে সবগুলো ট্রাক ও মোটরসাইকেল উদ্ধার করে। কিন্তু ফেরিটি উদ্ধার করার মতো সক্ষমতা ছিল না এদের। পরে ফেরিটি উদ্ধারে জেনুইন এন্টারপ্রাইজের সঙ্গে চক্তি করা হয়।