নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষায় প্রবাসী বড় ভাইয়ের জীববিজ্ঞানের পরীক্ষা দিতে গিয়ে ধরা পড়েছেন ছোট ভাই। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জমিদার হাট বিএন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। 

ওই ছোট ভাইয়ের নাম  মো. সালাহ উদ্দিন (২০)। সে নরোত্তমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ও উপজেলার শরিফপুর ইউনিয়নের খানপুর গ্রামের অলি উল্লাহর ছেলে। 

এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করেন। বেগমগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শামসুন নাহার এ দণ্ডাদেশ দেন।

জমিদার হাট বিএন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র সচিব মহিন উদ্দিন জানান, কেন্দ্রে ৯টি স্কুলের ১২৫০ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। সোমবার সকালে কেন্দ্রে এসএসসির জীববিজ্ঞান বিষয়ের পরীক্ষা চলছিল। এ সময় পরীক্ষার্থী জহির উদ্দিনের পরিবর্তে তার ছোট ভাই সালাহ উদ্দিন পরীক্ষা দিচ্ছিল। বিষয়টি দৃষ্টিগোচর হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কেন্দ্রে গিয়ে ওই শিক্ষার্থীকে হাতেনাতে ধরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় মো. সালাহ উদ্দিনকে ১ বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করেন তিনি।

নরোত্তমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইউনুছ নবী মানিক বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. গাউছুল আজম পাটওয়ারী বলেন, ঘটনাটি দুঃখজনক। আমরা বিষয়টির জন্য কেন্দ্র সচিবকে তলব করেছি। এ বিষয়ে যাদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সহযোগিতা রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামসুন নাহার বলেন, খবর পেয়ে সালাহ উদ্দিনকে আটক করা হয়। এ সময় তার প্রবেশপত্র ও রেজিস্ট্রেশন কার্ড যাচাই-বাছাই ও জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সে ধরা পড়ে যায়। পরে তাকে পাবলিক পরীক্ষা আইনে সাজা দিয়ে পুলিশের কাছে সোর্পদ করা হয়। একই সঙ্গে পরীক্ষার্থী জহির উদ্দিনকে চলতি এসএসসি পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করা হয়।