আইনের ধারা উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকারই খালেদা জিয়াকে বিদেশ পাঠাতে পারে।

রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, 'আমরা বারবার বলছি, আপনারা তাকে বিদেশে পাঠান চিকিৎসার জন্য। আমাদের মাথায় আসে না সমস্যাটা কোথায়? কেন আইনের কথা বলছেন, আইন তো ভুল দেখাচ্ছেন আপনারা। আইন দেখায়, বলে আইন মানি না। আইন আমরা মানি। ৪০১ ধারায় পরিষ্কার করে বলা আছে, সরকারই পারে খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে।'

তিনি বলেন, 'খালেদা জিয়া অসুস্থ। অত্যন্ত অসুস্থ, গুরুতর অসুস্থ। প্রতিদিন চিকিৎসকেরা তার জীবন রক্ষায় পরিশ্রম করছেন। তাকে যেতে না দেওয়া কেন? তাকে শর্ত সাপেক্ষে আটক রাখা কেন? একটি মাত্র কারণ, খালেদা জিয়া একমাত্র নেত্রী যিনি এই বাংলাদেশের জন্ম থেকে শুরু করে এখনো পর্যন্ত মানুষের জন্য কাজ করছেন। তিনি যখন বিরোধী দলীয় নেত্রী ছিলেন গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য ৯ বছর পথে পথে ঘুরে বেড়িয়েছেন। তিনি যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন এই দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য কাজ করেছেন।'

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সমর্থন জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, 'গণবিরোধী সরকার ডিজেলের দাম বাড়িয়ে দিলো ১৫ শতাংশ। সঙ্গে সঙ্গে বাস মালিকদের-শ্রমিকদের নামিয়ে দিলো ভাড়া বাড়াতে হবে। এই ভাড়া বাড়ানো, জ্বালানির দাম বাড়ানো কার স্বার্থে? আওয়ামী লীগের ওই সব দুর্নীতি পরায়ণ সিন্ডিকেট নিজেদের পকেট ভারী করার জন্য জনগণের পকেট কাটছে। সরকার বলছে আমরা বিআরটিসির ভাড়া তো কমালাম কিন্তু প্রাইভেট বাসের ভাড়া তো কমাতে পারবো না। তোমরা প্রাইভেট টেলিফোন-মোবাইল কন্ট্রোল করতে পারো, প্রাইভেট সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারো ব্যবসা-বাণিজ্য। বাস ভাড়া শিক্ষার্থীদের জন্য কমিয়ে দিয়ে সেখানে যদি ভর্তুকি দিতে হবে তা তোমরা দেবে না কেন? আজ এই সমাবেশ থেকে ছাত্র-ছাত্রীদের দাবির প্রতি আমরা সমর্থন জানাচ্ছি। দাবি করছি অবিলম্বের তাদের হাফ পাস দেওয়া হোক এবং প্রয়োজনে সরকার ভর্তুকি দেবে।'