বাসে ধাক্কা দেওয়ার প্রতিবাদ করায় দুই মোটরসাইকেল আরোহীকে নির্মমভাবে পিটিয়েছেন এর যাত্রীরা। এতে একজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহত ডেকোরেটর ব্যবসায়ী আবু সুফিয়ান (৩৫) সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মিয়ার ভাতিজা।

পুলিশ জানায়, বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আবু সুফিয়ান ঢাকা থেকে মোটরসাইকেলে বন্ধু অনিক সরকার হৃদয়কে সঙ্গে নিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জের বাড়িতে ফিরছিলেন। মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার থেকে নামার পর কাজলা এলাকায় ঢাকা থেকে কক্সবাজারগামী সিডিএম ট্রাভেলসের একটি বাস তাদের মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়। কোনো রকমে নিজেদের বাঁচিয়ে সুফিয়ান দ্রুত বাসটিকে ফলো করা শুরু করেন।

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ মহাসড়কের সাইনবোর্ড এলাকায় এসে সুফিয়ান বাসটি আটকাতে সক্ষম হন। এ সময় সুফিয়ান ও তার বন্ধু অনিক ঘটনার প্রতিবাদ করলে প্রথমে বাসের চালক ও হেলপারের সঙ্গে তাদের বাগবিতণ্ডা হয়। পরে বাসে থাকা পিকনিকের যাত্রীদের কয়েকজন নেমে সুফিয়ান ও অনিককে মারধর করেন। তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ও হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এলে বাস রেখে পালিয়ে যায় বাসের চালক, হেলপার ও যাত্রীরা।

গুরুতর আহত সুফিয়ানকে উদ্ধার করে প্রথমে সাইনবোর্ডের প্রো-অ্যাকটিভ হাসপাতালে এবং পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানেই তার মৃত্যু হয়। তিনি সিদ্ধিরগঞ্জের পশ্চিম মিজমিজি এলাকার বাসিন্দা। তার সঙ্গী অনিকও পিটুনিতে আহত হন। চিকিৎসা নিয়ে অনিক এখন বাসায় আছেন। হাইওয়ে পুলিশের সহায়তায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ বাসটি আটক করেছে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, প্রাথমিকভাবে বাসটি ভাড়া করা দুজনের নাম জানতে পেরেছেন তারা। এ সূত্র ধরে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। এ ঘটনায় সুফিয়ানের চাচা বাদী হয়ে বাসের চালক, হেলপারসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরও ২০-২৫ জনের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেছেন।