রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরির নাগাল পেতে ৮-১০ ঘণ্টা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হচ্ছে। ঘাট এলাকায় তিন কিলোমিটার ছাড়িয়ে গেছে গাড়ির সারি। এতে পণ্যবাহী গাড়ির চালক ও তাঁদের সহকারীদের পোহাতে হচ্ছে ভোগান্তি।

দৌলতদিয়া ঘাট সূত্রে জানা গেছে, দৌলতদিয়া–পাটুরিয়া নৌপথের তিনটি ফেরি বিকল হওয়ায় এবং বেনাপোল ও ভোমরা স্থলবন্দর থেকে প্রচুরসংখ্যক গাড়ি আসায় দৌলতদিয়া ঘাটে গাড়ির চাপ বেড়েছে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, দৌলতদিয়া ফেরিঘাট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের বাংলাদেশ হ্যাচারিজ পর্যন্ত তিন কিলোমিটার ঢাকামুখী পণ্যবাহী গাড়ির সারি। ফেরিঘাট সড়কের প্রায় দুই কিলোমিটারে পণ্যবাহীর সঙ্গে যাত্রীবাহী দূরপাল্লার বাস রয়েছে। চার শতাধিক বিভিন্ন ধরনের যানবাহন ফেরিতে ওঠার অপেক্ষায় রয়েছে। এর মধ্যে পণ্যবাহী বেশির ভাগ গাড়ি ৮-১০ ঘণ্টা ফেরির জন্য অপেক্ষা করছে। যাত্রীবাহী পরিবহন বা জরুরি পচনশীল পণ্যের গাড়ি সাধারণত দুই-তিন ঘণ্টা পরই ফেরিতে ওঠার সুযোগ পাচ্ছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয় জানায়, দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া নৌপথে ছোট-বড় মিলে ২১টি ফেরি দেওয়া আছে। গত সপ্তাহে আরেকটি ফেরি বাড়ানো হয়। ২২টি ফেরি চালু হওয়ায় যানবাহন পারাপারে তেমন সমস্যা হয়নি। মঙ্গলবার সকালে হঠাৎ যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেওয়ায় রো রো (বড়) ফেরি ভাষাশহীদ বরকত ও ইউটিলিটি (ছোট) হাসনাহেনা বিকল হয়ে যায়। এর আগে গতকাল রাতে যান্ত্রিক ত্রুটিতে ডাম্প ফেরি টাপলে বিকল হয়ে যায়। ফেরি তিনটি পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতিতে রাখা হয়েছে। পরপর তিনটি ফেরি বিকল থাকায় যানবাহন পারাপার ব্যাহত হচ্ছে।