ইবাদত-বন্দেগি করে কাটছে এটিএম শামসুজ্জামানের সময়

প্রকাশ: ১৫ মে ২০২০     আপডেট: ১৫ মে ২০২০   

বিনোদন প্রতিবেদক

করোনা ভাইরাসের এই পরিস্থিতে  অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামানের শারীরিক অবস্থা মোটামুটি ভালো আছে বলেই জানালেন তার স্ত্রী রুনী জামান। শুক্রবার হুট করে এটি এম শামসুজ্জমানের শারীরিক অবস্থা অবনতির খবর এলে  তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে পরিবারের পক্ষ থেকে তার শারীরিক অবস্থা ভালো বলেই জানানো হয়।

তবে যারা এটিএম শামসুজ্জমানকে নিয়ে এমন গুজব তোলেন তাদের এ ধরনের গুজব না ছড়াতে আহ্বান করেন রুনী জামান। সবার কাছে দোয়া চেয়ে রুনী জামান বলেন,  ‘টানা চার মাস চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন গত আগস্ট মাসে। তার বাড়ি ফেরার  ৯ মাস হলো প্রায়। এখন তিনি ঘরবন্দি জীবন যাপন করছেন।’ 

কিভাবে কাটছে এ অভিনেতার সময় জানতে চাইলে রুনী জামান বলেন, বই পড়ে, খবর দেখে এবং ইবাদত-বন্দেগি করেই সময় কাটছে তার। 

এটিএম শামসুজ্জামানের চলচ্চিত্র জীবনের শুরু ১৯৬১ সালে পরিচালক উদয়ন চৌধূরির ‘বিষকন্যা; চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে। প্রথম কাহিনী ও চিত্রনাট্য লিখেছেন ‘জলছবি; চলচ্চিত্রের জন্য। ছবির পরিচালক ছিলেন নারায়ণ ঘোষ মিতা, এ ছবির মাধ্যমেই অভিনেতা ফারুকের চলচ্চিত্রে অভিষেক। এ পর্যন্ত শতাধিক চিত্রনাট্য ও কাহিনী লিখেছেন। প্রথম দিকে কৌতুক অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করেন তিনি। অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র পর্দায় আগমন ১৯৬৫ সালের দিকে। ১৯৭৬ সালে চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেনের ‘নয়নমণি’ চলচ্চিত্রে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে আলোচনা আসেন তিনি।

১৯৮৭ সালে কাজী হায়াত পরিচালিত দায়ী কে? চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।  রেদওয়ান রনি পরিচালিত ‘চোরাবালিতে’ অভিনয় করে  শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব-চরিত্রে অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।