ঢাকা শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

৩০ পেরোলেই চোখের পরীক্ষা

৩০ পেরোলেই চোখের পরীক্ষা

প্রতীকী ছবি

ডাক্তারবাড়ি ডেস্ক

প্রকাশ: ১৪ মে ২০২৪ | ২৩:৩১

বয়স ৩০ পেরোলেই নিয়মিত চক্ষু পরীক্ষা করানো উচিত। আগে থেকেই সতর্ক হলে ক্ষতি কী? বরং এড়ানো যায় অনেক বড় ঝুঁকি। শরীরের আর পাঁচটা অঙ্গের দিকে আমাদের নজর থাকলেও চোখকে আমরা প্রায়ই অবহেলা করি। 
শরীরের আর পাঁচটা অঙ্গের দিকে আমাদের নজর থাকলেও চোখকে আমরা প্রায়ই অবহেলা করি। 
বয়স বাড়লে যেমন চুলে পাক ধরে, ত্বক শিথিল হয়ে যায়, তেমনই চোখের স্বচ্ছ লেন্স ঝাপসা হয়ে আসে। ফলে দৃষ্টিশক্তি কমতে শুরু করে। অনেকেই স্বল্প দৃষ্টির সঙ্গে সমঝোতা করেই দিন কাটান। কিন্তু এর সুদূরপ্রসারী ফল হতে পারে মারাত্মক। দৃষ্টিশক্তি সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে। শরীরের আর পাঁচটা অঙ্গের দিকে আমাদের নজর থাকলেও চোখকে আমরা প্রায়ই অবহেলা করি। আর এতেই ঘটে বিপত্তি। বয়স ৩০ পেরোলেই নিয়মিত চক্ষু পরীক্ষা করানো উচিত। আগে থেকেই সতর্ক হলে ক্ষতি কী? বরং এড়ানো যায় অনেক বড় ঝুঁকি। জেনে নিন, ৩০ এর পর চোখের কোন কোন পরীক্ষাগুলো করিয়ে নেওয়াই শ্রেয়।
এ ক্ষেত্রে চিকিৎসকদের পরামর্শ নিয়ে মায়োপিয়া, হাইপারোপিয়া এবং প্রেসবায়োপিয়া পরীক্ষা করানো উচিত। এই তিনটি পরীক্ষার মাধ্যমেই আপনার দৃষ্টিশক্তির মান কেমন তা যাচাই করা হয়।
 চোখের পেশিগুলি ঠিকমতো কাজ করছে কিনা সেই পরীক্ষাও করিয়ে নেওয়াও ভালো।
 আপনার চোখ সঠিক রং চিনতে পারছে কিনা, সেটাও পরীক্ষা করিয়ে নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে চিকিৎসকরা আপনার সামনে রঙিন ছবি ধরবেন। আপনার দৃষ্টিতে সব রং ধরা পড়ছে কিনা, সেটা জানা ভীষণ জরুরি।
 চোখের মণি আলোতে ঠিকঠাক সাড়া দিচ্ছে কিনা, সেটাও পরীক্ষা করাতে হবে।
 অনেকের রেটিনায় ফুটো হয়ে যায়। নিয়মিত চোখের পরীক্ষা না করলে সেটা ধরাও পড়ে না! এর ফলে কমতে থাকে দৃষ্টিশক্তি। বাড়ে অন্ধত্বের ঝুঁকি। সেই কারণেই আপনার চোখের বিভিন্ন স্নায়ুগুলো এবং রেটিনা ঠিকমতো কাজ করছে কিনা, তা-ও পরীক্ষা করিয়ে নিতে হবে। v

আরও পড়ুন

×