ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

ডাস্ট অ্যালার্জি থেকে সুরক্ষা পেতে

মেনে চলুন কিছু নিয়ম

মেনে চলুন  কিছু নিয়ম

প্রতীকী ছবি

 ডা. জাহেদ পারভেজ

প্রকাশ: ১৪ মে ২০২৪ | ২৩:৩৭

ডাস্ট অ্যালার্জি হলো এক ধরনের পরিবেশগত প্রতিক্রিয়া। ঠান্ডা, সর্দি বা রাইনাইটিস, কনজাংটিভাইটিস বা চোখ ওঠা, চর্মরোগ অ্যাকজিমা বা দাদ, হাঁপানি বা শ্বাসকষ্ট এসবই ধুলার অ্যালার্জির কারণে দেখা দিতে পারে। আর এই ডাস্ট অ্যালার্জির জন্য দায়ী ধুলাবালির এক ধরনের ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র পোকামাকড়। এই পোকাগুলোকে ডাস্ট মাইটস বা ধুলার পোকা বলা হয়ে থাকে। এরা আকারে আণুবীক্ষণিক আকৃতির হয়ে থাকে।

লক্ষণ আর উপসর্গগুলো
ডাস্ট অ্যালার্জির অ্যালার্জেন বাড়িতে আর্দ্র পরিবেশে বড় হয় এবং ভেতরের পরিবেশের সঙ্গে খুব ভালোভাবে মানিয়ে নেয়। যদি আপনার মধ্যে ডাস্ট অ্যালার্জির প্রবণতা থাকে, তাহলে আপনার শরীরে নিচের  উপসর্গগুলোর মধ্যে একটি বা একসঙ্গে অনেক উপসর্গ দেখা দিতে পারে–

হাঁচি
সর্দি বা নাক দিয়ে পানি পড়া, চোখে জ্বালা বা চুলকানি এবং চোখে জ্বালা-যন্ত্রণা
চামড়ায় জ্বালা বা চুলকানি
নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া।
ডাস্ট অ্যালার্জির সৃষ্ট অ্যাজমায় নিম্নলিখিত উপসর্গ দেখা দিতে পারে–
শ্বাস নিতে কষ্ট, নিঃশ্বাস ফেলার সময়
বুকে সাঁ সাঁ করে শব্দ
ঘুমানোর অসুবিধা ইত্যাদি।
ডাস্ট মাইটস বা ধুলার পোকাগুলো মানুষের খসে পড়া মৃত চামড়ার কোষগুলো ব্যবহার করে বেঁচে থাকে আর ওগুলো দিয়েই প্রধানত বাড়ির ধুলা-ময়লা তৈরি হয়। ডাস্ট মাইটস বা ধুলার পোকাদের বাড়ির ডাস্ট মাইটস এবং স্টোরেজ মাইটস এই দুই শ্রেণিতে ভাগ করা যায়। এরা সাধারণত বাতাসের মাধ্যমে নাকের ভেতরে অস্বাভাবিক জ্বালা-যন্ত্রণার জন্য দায়ী। ডাস্ট মাইটসের মতো অ্যালার্জেনের (অ্যালার্জি সৃষ্টিকারী জীবের) উপস্থিতিতে আপনার শরীর অ্যান্টিবডি বা প্রতিরোধক অবস্থা তৈরি করে আপনাকে এই প্রতিক্রিয়া থেকে বাঁচতে এবং নিজের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সুদৃঢ় করতে সাহায্য করে। এই প্রতিক্রিয়া স্থানীয়ভাবে বা শরীরের কোনো একটি বিশেষ অংশকে আক্রান্ত করতে পারে। কিছু বিরল ক্ষেত্রে এই ডাস্ট অ্যালার্জি শরীরে অ্যানাফাইলেটিক শক নামক জীবনসংহারি মারাত্মক শারীরিক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করতে পারে। অসাবধানতাবশত শুধু ডাস্ট মাইটস পেটে চলে গেলে প্রাণসংহারি এ অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে। এই ডাস্ট মাইটস গদি, কার্পেট এবং আসবাবের ওপর অবস্থান করে। কিছু ক্ষেত্রে ডাস্ট মাইটস খাদ্যসামগ্রী নষ্ট বা বিষাক্ত করে ফেলতে পারে। অল্পবয়সী এটোপিক বা অ্যালার্জিপ্রবণ শিশু, হাঁপানি রোগী এবং প্রসূতি মায়েরা এ ধরনের অ্যালার্জিতে অধিক হারে আক্রান্ত হয়ে থাকেন।

রোগ নির্ণয়
ঠিক কোন অ্যালার্জেন বা জীবটি ডাস্ট অ্যালার্জির জন্য দায়ী তা সঠিকভাবে নির্ণয় করতে কিছু রোগ নির্ণয়ের পরীক্ষা প্রয়োজন। প্রচলিত পরীক্ষার সময় একটি ত্বকে ছিদ্র করে পরীক্ষা করা হয়, যেখানে অ্যালার্জি নির্ণয় করতে বাড়ির ডাস্ট মাইটসের একটি নির্যাস ব্যবহার করা হয়। এর পর অপেক্ষা করে পর্যবেক্ষণ করা হয় কতক্ষণ পর ওই জায়গায় অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া শুরু হচ্ছে এবং কী পরিমাণ জায়গা ফুলে গেছে বা লাল হয়ে গেছে তা মেপে দেখা হয়। রোগাক্রান্ত ব্যক্তির ত্বক যদি পরীক্ষার সময় সংবেদনশীল হয়, তবে রক্ত পরীক্ষা করানো সুবিধাজনক হয়। রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে অ্যালার্জির নির্দেশক কিছু অ্যান্টিবডি শনাক্ত করা যেতে পারে। নাকের ভেতরের মিউকোসা বা শ্লেষ্মা বা চোখের কনজাংটিভার প্রতিক্রিয়া দেখেও অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া নিশ্চিত করা যেতে পারে।
কোন অ্যালার্জেন ডাস্ট অ্যালার্জির কারণ তা জানতে পারলে ডাস্ট অ্যালার্জির চিকিৎসা খুব সহজে হয়ে যায়। শরীরের মধ্যস্থতাকারীর ওপর চিকিৎসা নির্ভর করে যেমন হিস্টামাইন এবং লিউকোট্রাইন এসব রাসায়নিক পদার্থ অ্যালার্জিক প্রতিক্রিয়া ঘটাতে সাহায্য করে। ইমিউনোথেরাপি বা রোগ প্রতিরোধক থেরাপি– এটি চিকিৎসার আরেকটি নতুন পদ্ধতি, যেখানে রোগীর অ্যালার্জির সংবেদনশীলতা কমিয়ে দেওয়া হয়। এটি একটি দীর্ঘস্থায়ী এবং কার্যকর পদ্ধতি। 

উপসর্গভিত্তিক চিকিৎসা 
অ্যালার্জি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য মুখে খাওয়ার স্টেরয়েডের মতো ওষুধগুলো দেওয়া হতে পারে।
কিছু প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা ধুলার কারণে রোগের সূত্রপাত এড়াতে এবং সেই সূত্রে অ্যালার্জি প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারে।
 বিছানার চাদর এবং বালিশের কভার গরম পানিতে ধুয়ে ফেলুন।
 কার্পেট সরিয়ে ফেলুন।
আসবাব ভালোমতো ভ্যাকুয়াম ক্লিনিং করুন। 
প্রয়োজনে একজন অ্যালার্জি বিশেষজ্ঞের পরামর্শক্রমে চিকিৎসা শুরু করুন। 

[ত্বক, চর্ম ও অ্যালার্জি বিশেষজ্ঞ]

আরও পড়ুন

×