শেয়ারবাজার ইস্যুতে অর্থমন্ত্রীর উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের খবর প্রচারের পর আজ সোমবার সূচকের উডন্ত সূচনায় দিনের লেনদেন শুরু হয়েছে। সকাল ১০টায় লেনদেনের শুরুই হয় প্রধান শেয়ারবাজার ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচকের ৫০ পয়েন্ট বৃদ্ধি দিয়ে।

গতকাল লেনদেন শেষে ১১৫ পয়েন্ট হারিয়ে ৬১৪২.৬৮ পয়েন্টে নেমেছিল। আজ ওই অবস্থান থেকে সূচকটি যাত্রা শুরু করে। ঠিক সাড়ে ১০টায় ডিএসইএক্স ৬১৯৩.৮৫ পয়েন্টে ওঠে, যা গতকালের তুলনায় ৫১ পয়েন্ট ওপরে।

তবে প্রি-ওপেনিং সেশন না থাকায় কী করে ঠিক লেনদেন শুরুর মুহূর্তেই সূচকের পরিবর্তন হলো- তা জানা যায়নি। আজকের দরবৃদ্ধির আগে গতকাল পর্যন্ত টানা ৮ দিনের পতনের ডিএসইএক্স সূচক ৫৫৫ পয়েন্ট বা ৯ শতাংশ পতন হয়েছিল।

দরপতন রোধে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসিও মার্জিন ঋণের প্রদানের হার বাড়িয়েছে। এখন ব্রোকারেজ হাউস বা মার্চেন্ট ব্যাংক তাদের গ্রাহকদের ১০০ টাকা বিনিয়োগের বিপরীতে আরো ১০০ টাকা শেয়ার কিনতে ঋণ দিতে পারবে। এতদিন ৮ টাকা পর্যন্ত ঋণ দিতে পারতো।

আজকের লেনদেন পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, সকাল ১০টায় লেনদেনের শুরুর পর প্রথম আট মিনিট ক্রমাগত সূচক বেড়েছে। লেনদেন শুরুর মাত্র ৫ মিনিট পর ডিএসএক্স সূচক ৬২৭৫.৮৪পয়েন্টে ওঠে, যা গতকালের তুলনায় ১৩৩ পয়েন্ট বেশি।

সকাল ১০টা ৮ মিনিটে সূচকটি আজকের এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ অবস্থান ৬২৭৮ পয়েন্টে উঠেছিল। এ সময় দেখা যায়, দরবৃদ্ধির শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলোর সিংহভাগের মাত্র একটি বা দুইটি লেনদেন সম্পন্ন হয়েছে। লেনদেনের প্রথম আধা ঘণ্টা পরও একই অবস্থা দেখা গেছে। উড়ন্ত সূচনায় এর পর কিছুটা লাগাম পড়ে। সকাল ১০টা ৪২ মিনিটে সূচকটি দিনের সর্বোচ্চ অবস্থান থেকে প্রায় ৪৬ পয়েন্ট কমে ৬২৩০ পয়েন্টের নিচে নামে।

লেনদেনের প্রথম ঘণ্টা শেষে ডিএসইতে ৩৩৬ শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল। এ সময় দর হারিয়ে কেনাবেচা হচ্ছিল ১৬টি এবং দর অপরিবর্তিত অবস্থায় কেনাবেচা হচ্ছিল ১২টি শেয়ার। এ সময় ডিএসইএক্স সূচক ১১৫ পয়েন্ট বেড়ে ৬২৫৮ পয়েন্টে অবস্থান করছিল। লেনদেন হয়েছে ২১৫ কোটি ৪০ লাখ টাকার শেয়ার।

এ সময় দরবৃদ্ধির শীর্ষে ছিল সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজ কোম্পানির শেয়ার। গতকালের তুলনায় সাড়ে ৯ শতাংশ দর বেড়ে ৫৩টাকায় কেনাবেচা হচ্ছিল। যদিও লেনদেনের প্রথম ঘণ্টায় মাত্র ৫টি ট্রেডে এ কোম্পানিটির ২ হাজার ৭৬০টি শেয়ার ১ লাখ ৪৪ টাকায় কেনাবেচা হয়।

দরবৃদ্ধির এর পরের অবস্থানে থাকা প্রগতি লাইফ, গেøাবাল হেভি কেমিক্যাল, ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স, ফারইস্ট লাইফ, প্রাইম ফাইন্যান্সের লেনদেন চিত্রও ছিল একই রকম। এসব শেয়ারের দর প্রথম ঘণ্টায় ৮ থেকে ৯ শতাংশ বেড়েছিল।

তবে সূচকের বৃদ্ধিতে বড় ভ‚মিকা রাখছিল বেক্সিমকো লিমিটেডের দরবৃদ্ধি। এ শেয়ারটির দর ১২৫ টাকা ৯০ পয়সা থেকে ১৩১ টাকা ১০ পয়সা হতেই সূচক বেড়েছে ১২ পয়েন্ট। গত কয়েকদিনের সূচক পতনের বড় কারণও ছিল এ শেয়ারটি।

এর বাইরে বেলা ১১টায় সূচকের বৃদ্ধিতে বিট্রিশ আমেরিকান টোকাবোর অবদান ছিল প্রায় ৬ পয়েন্ট, বেক্সিমকো ফার্মার সোয়া ৫ পয়েন্ট, লাফার্জ-হোলসিম সিমেন্টের আড়াই পয়েন্ট, ওরিয়ন ফার্মার আড়াই পয়েন্ট।