ময়মনসিংহ নগরীতে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে বল্লমের আঘাতে হোসনা আক্তার (৪৫)  নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও তিনজন। রোববার সকালে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। পুলিশ হত্যাকাণ্ডের মূলহোতাসহ ৯ জনকে আটক করেছে।

নিহত হোসনা আক্তার নগরীর শম্ভুগঞ্জ রঘুরামপুর এলাকার জহির উদ্দিনের মেয়ে।

পুলিশ জানায়, নগরীর শম্ভুগঞ্জ রঘুরামপুর এলাকায় প্রয়াত জহির উদ্দিন সরকার, আফসার উদ্দিন সরকার ও মৈদর আলী সরকারের সন্তানদের মধ্যে ১৫ শতক জমির ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। ওই জমিতে থাকা পুকুর ও একটি দোকান ঘর নির্মাণ করাকে কেন্দ্র করে আদালত ১৪৪ ধারাও জারি করে মাস খানেক আগে। আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকায় কোনো পক্ষ সেখানে কাজ করতে পারছিল না। কিন্তু পাশাপাশি বাড়ি হওয়ায় তুচ্ছ বিষয় নিয়ে এসব পরিবারের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকতো। গত রোববার সকালে এ বিষয় নিয়ে আবারও ঝগড়া শুরু হলে আফসারের ছেলে শহীদুল বল্লম নিয়ে জহির উদ্দিনের মেয়ে হোসনা আক্তারের বুকে আঘাত করেন। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। এ সময় আহত হন অন্তত আরও তিনজন। তাদেরকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে হোসনাকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার মরে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে শহীদুল ইসলামসহ ৯ জনকে তাদের হেফাজতে নেয় পুলিশ। ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ শাহ কামাল আকন্দ বলেন, প্রাথমিক তদন্তে নিহতের বুকে বল্লম দিয়ে শহীদুল আঘাত দিয়েছেন এমন তথ্য পাওয়া গেছে। হত্যকাণ্ডে জড়িত নয় জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।