ঢাকা শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

খেলাপিদের থেকে লক্ষ্যমাত্রার ১৫% কম আদায়

খেলাপিদের থেকে লক্ষ্যমাত্রার ১৫% কম আদায়

বিশেষ প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৩ নভেম্বর ২০২২ | ১২:০০ | আপডেট: ০৪ নভেম্বর ২০২২ | ০০:০৩

চলতি বছর রাষ্ট্রীয় মালিকানার চার বাণিজ্যিক ব্যাংকের ৫ হাজার ৫৪৭ কোটি টাকার খেলাপি ঋণ আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে প্রথম ছয় মাসে এসব ব্যাংক আদায় করেছে মাত্র ৮১৪ কোটি টাকা। মোট লক্ষ্যমাত্রার যা ১৪ দশমিক ৬৮ শতাংশ। গতকাল সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকের এমডিদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করে খেলাপি ঋণ আদায় জোরদার, মূলধন ঘাটতি পূরণ ও প্রভিশন ঘাটতি মেটানোর সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে এগোতে বলা হয়েছে।

আর্থিক খাত সংস্কার ও রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলোর আর্থিক পরিস্থিতির উন্নয়নে আইএমএফের ঢাকা সফররত প্রতিনিধি দল বিভিন্ন শর্ত দিচ্ছে। এর মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার আকস্মিকভাবে এ বৈঠক ডাকে বাংলাদেশ ব্যাংক। বৈঠকে ব্যাংকগুলোর সঙ্গে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারকের (এমওইউ) আলোকে অগ্রগতি পর্যালোচনা করা হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সভাকক্ষে গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, রাষ্ট্রীয় মালিকানার চার বাণিজ্যিক ব্যাংকে জুন পর্যন্ত অবলোপনসহ খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬৪ হাজার ৭৩২ কোটি টাকা। প্রভিশন ও মূলধন ঘাটতি না দেখাতে ব্যাংকগুলোকে বিভিন্ন ছাড় দিয়ে রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এর পরও জুন পর্যন্ত চার ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৬৫০ কোটি টাকা। আর সোনালী ছাড়া অন্য তিন ব্যাংকের নিরাপত্তা সঞ্চিতি ঘাটতি রয়েছে ৬ হাজার ৫৭৬ কোটি টাকা। বিপুল অঙ্কের এই ঘাটতির কারণে দীর্ঘদিন ধরে ব্যাংকগুলো প্রকৃত লোকসানে রয়েছে। যদিও নানা উপায়ে এসব ব্যাংকের আর্থিক প্রতিবেদনে মুনাফা দেখানো হয়। মূলত ঘাটতি থাকলে এলসি কনফারমেশন চার্জসহ আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে খরচ বেশি হয়। যে কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক অনেক ব্যাংকে বিভিন্ন ছাড় দিয়ে মুনাফা দেখানোর সুযোগ দিচ্ছে। যদিও ব্যাংকগুলো শেয়ারহোল্ডারদের কোনো লভ্যাংশ দিতে পারে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, জুন পর্যন্ত সোনালী ব্যাংক ১ হাজার ৪৫ কোটি টাকা পরিচালন মুনাফা দেখিয়েছে। এর বিপরীতে নিট মুনাফা দেখানো হয় ১৫২ কোটি টাকা। জনতা ব্যাংক ৫৫৭ কোটি টাকা পরিচালন মুনাফার বিপরীতে নিট মুনাফা দেখিয়েছে ১৩৭ কোটি টাকা। অগ্রণী ব্যাংক ৮৮০ কোটি টাকা পরিচালন মুনাফার বিপরীতে ২৬০ কোটি টাকা নিট মুনাফা দেখিয়েছে। আর রূপালী ব্যাংক ৫৭ কোটি টাকা পরিচালন মুনাফার বিপরীতে নিট মুনাফা দেখিয়েছে ৮ কোটি টাকা।

চলতি বছর ব্যাংকগুলোর পরিচালন ব্যয় ৭ হাজার ২৩৭ কোটি টাকার মধ্যে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে। প্রথম ছয় মাসে এসব ব্যাংক পরিচালন ব্যয় করেছে ৩ হাজার ৯১৬ কোটি টাকা। ফলে বছর শেষে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি হবে বলে জানান সংশ্নিষ্টরা।

আরও পড়ুন

×