রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সোনালী ব্যাংকের মতিঝিলের শিল্প ভবন কর্পোরেট শাখার একজন কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ প্রেক্ষিতে সোমবার শাখাটি লকডাউন ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার থেকে পার্শ্ববর্তী দিলকুশা কর্পোরেট শাখা থেকে জরুরি ব্যাংকিং সেবা নিতে পারবেন এ শাখার গ্রাহকরা। সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আতাউর রহমান প্রধান সমকালকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

দেশের সবচেয়ে বড় ব্যাংক রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংকটির সারা দেশে বর্তমানে এক হাজার ২২২টি শাখা রয়েছে। যেসব এলাকায় বাংলাদেশ ব্যাংকের শাখা নেই সেখানে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিনিধি হিসেবে চেষ্ট শাখা হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনা করে সোনালী ব্যাংক। সরকারের ট্রেজারি কার্যক্রম পরিচালিত হয় এই ব্যাংকের মাধ্যমে। ব্যাংকটির শিল্প ভবন কর্পোরেট শাখা বন্ধ হলেও বাকি সব শাখা খোলা আছে।

সোনালী ব্যাংকের প্রধান ব্যবস্থাপনা পরিচালক আতাউর রহমান সমকালকে বলেন, বিভিন্ন ধরনের বেতন-ভাতা পরিশোধ, সরকারের ট্রেজারি কার্যক্রম পরিচালনাসহ বিভিন্ন কারণে সোনালী ব্যাংকের সব শাখা খোলা রাখতে হচ্ছে। সাবধানতার সাথে সবাই কাজ করছেন। তারপরও কেউ আক্রান্ত হলে তাকে সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়া হচ্ছে। শিল্প ভবন কর্পোরেট শাখার আক্রান্ত কর্মকর্তার সাথে ব্যাংকের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা ও সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখা হচ্ছে।

সাধারণ ছুটির মধ্যে অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও ব্যাংক লেনদেন চলছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনার আলোকে পুরোপুরি অনলাইন না থাকা ব্যাংকের সব শাখা খোলা রাখতে হচ্ছে। আর অন্য সব ব্যাংকের বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ে অন্তত একটি করে শাখা খোলা রাখতে বলা হয়েছে। ব্যাংকারদের ঝুঁকি বিবেচনায় যারা অফিস করছেন তাদের বাড়তি ভাতা, ঝুঁকি বিমাসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ ছাড়া শাখায় স্বাস্থ্য বিধি মেনে লেনদেনের জোর তাগাদা দেওয়া হচ্ছে। যদিও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আগত গ্রাহকরা তা মানছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে।