এলপিজি ব্যবসায় বেক্সিমকো ও ভারতের আইওসির চুক্তি

প্রকাশ: ০১ জুলাই ২০২০   

সমকাল প্রতিবেদক

বাংলাদেশে তরল পেট্রোলিয়াম গ্যাস বা এলপিজি ব্যবসার জন্য ভারতের পেট্রোলিয়াম কোম্পানি ইন্ডিয়ান ওয়েল কর্পোরেশন (আইওসি) ও বাংলাদেশের বেক্সিমকো এলপিজি যৌথ মূলধনি কোম্পানি (জেভিসি) প্রতিষ্ঠার জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। 

আইওসি’র শতভাগ মালিকানাধীন দুবাই ভিত্তিক অঙ্গপ্রতিষ্ঠান আইওসি মিডল ইস্ট এফজেডই ও বেক্সিমকো এলপিজি’র আরব আমিরাতভিত্তিক হোল্ডিং কোম্পানি আরআর হোল্ডিংসের  ৫০:৫০ মালিকানায় এই যৌথ মূলধনী কোম্পানি গঠিত হবে।

ভার্চুয়াল এই চুক্তি সই অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার ভারতের মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান সভাপতিত্ব করেন। তিনি বলেন, নতুন এই জয়েন্ট ভেঞ্চার  বাংলাদেশে সুলভ মূল্যে এলপিজি সরবরাহের মাধ্যমে আর্থসামাজিক পরিবর্তনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা ও সংসদ সদস্য সালমান ফজলুর রহমান বলেন, সারাবিশ্ব যখন কভিড-১৯ মহামারির অর্থনৈতিক দুর্যোগ নিয়ে লড়াই করছে, তখন এই ধরনের বিনিয়োগ বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার শক্তিশালী ও টেকসই বন্ধুত্বেরই প্রতিফলন।

বাংলাদেশের বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, বাংলাদেশে মধ্যবিত্ত শ্রেণি বাড়ছে। তাদের ক্রয় ক্ষমতাও আগের চেয়ে বেশি। এ কারণে গত কয়েক বছর ধরে এলপিজি খাত ব্যাপকভাবে বিস্তৃত হয়েছে। আগামী বছরগুলোতেও এই খাত আরও এগিয়ে যাবে।

অনুষ্ঠানে ইন্ডিয়ান ওয়েল-এর চেয়ারম্যান সঞ্জিব সিং বলেন, ১৯৯৯ সালে লুব্রিকেন্টস বাজারজাত করার মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রবেশ করে ইন্ডিয়ান ওয়েল। আজ বাংলাদেশে একটি শক্তিশালী আংশিদারের সঙ্গে একজোট হয়েছি। আমরা বাংলাদেশে একটি গভীর সমুদ্র বন্দরে বড় একটি এলপিজি টার্মিনাল স্থাপন করতে চাই, যার ফলে বৃহৎ গ্যাস ক্যারিয়ার থেকে এলপিজি গ্রহণ করা সম্ভব হবে। এতে করে আমদানির খরচ হ্রাস পাবে। আর আমদানির খরচ কমলে বাংলাদেশের মানুষ সাশ্রয়ী মূল্যে এলপিজি পাবেন।

আরআর হোল্ডিংস লিমিটেড-এর চেয়ারম্যান শায়ান এফ রহমানও অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।